স্মিথের নেতৃত্বে বাংলাদেশে সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া

অজিদের নতুন নেতা নির্বাচনে খুব বেশি সময় নিতে হয়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে। আর তার ডেপুটি হয়েছেন উদ্বোধনী মারকুটে ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার।

অজিদের নতুন নেতা নির্বাচনে খুব বেশি সময় নিতে হয়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে। আর তার ডেপুটি হয়েছেন উদ্বোধনী মারকুটে ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার।মাইকেল ক্লার্কের অবসরের ঘোষণার পরই অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের ভবিষ্যত নেতৃত্বের দৌড়ে আলোচনায় ছিল স্টিভেন স্মিথের নাম। অবশ্য গত বছর ভারতের বিপক্ষে হোম সিরিজেই নিজের নেতৃত্ব গুণ দেখিয়েছিলেন স্মিথ। তাই অজিদের নতুন নেতা নির্বাচনে খুব বেশি সময় নিতে হয়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে। আর তার ডেপুটি হয়েছেন উদ্বোধনী মারকুটে ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার।

এ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়কের পালাবদলের সঙ্গে আবারো জড়িয়ে গেল বাংলাদেশের নাম। ২০১১ বিশ্বকাপের পর বাংলাদেশ সফরে রিকি পন্টিংয়ের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন মাইকেল ক্লার্ক।
আর আরেকটি বাংলাদেশ সফরের আগ মুহূর্তে ক্লার্কের জায়গায় অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হলেন স্টিভেন স্মিথ।

ব্যর্থতার দায় নিয়ে এরই মধ্যে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক। ওভালে পঞ্চম টেস্টই হবে তার বিদায়ী টেস্ট।

এরপর স্মিথের নেতৃত্বে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পা রাখবে অস্ট্রেলিয়া। সহ-অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন ডেভিড ওয়ার্নার।

শুক্রবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার বোর্ড মিটিংয়ে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নয় সদস্য বিশিষ্ট বোর্ডের সবাই এই দুজনকে অনুমোদন দেন।

নির্বাচকমণ্ডলীর প্রধান রড মার্শ বলেন, ‘ক্লার্কের অবসরের ঘোষণার পর স্মিথকে নির্বাচন আমাদের জন্য সহজ হয়ে গিয়েছিল। ২৬ বছর বয়সী তরুণ স্মিথের রয়েছে অসাধারণ মেধা, চমৎকার নেতৃত্ব গুণ আর দারুণ টেম্পারমেন্ট। ফল নির্বাচকদের সবারই পছন্দের ছিল সে।’

তিনি বলেন, ‘ডেভিড ওয়ার্নারও এখন যথেষ্ট পরিণত। সিনিয়র খেলোয়াড় হিসেবে দলে ভূমিকা রাখছেন। সে সামনে অনেক দূর যাবে। এছাড়া আইপিলে সানরাইজার্সের হয়ে তার অধিনায়কত্বের মূল্যবান অভিজ্ঞতা রয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি যোগ্য দুজনের হাতেই অস্ট্রেলিয়ার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’

ক্লার্কের অনুপস্থিতে এর আগেও দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন স্মিথ। গত বছরের শেষদিকে ভারত সিরিজে নেতৃত্ব দেন তিনি। দেশের হয়ে সাদা পোশাকে স্মিথ ৪৫তম অধিনায়ক ছিলেন। সেবার ক্লার্কের চোটে নেতৃত্বে অভিষেক হয় স্মিথের।

অধিনায়কত্বের দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে তিন টেস্টের তিনটিতেই শতক হাঁকিয়েছিলেন স্মিথ। যেখানে অধিনায়ক হিসেবে তিন টেস্টে তার রান ছিল ৯২.৫০ গড়ে ৫৫৫।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *