সাউদি-ম্যাককালামে বিধ্বস্ত ইংল্যান্ড

ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা যেমন নাকাল হয়েছে টিম সাউদির বোলিংয়ে। তেমনি বোলাররাও ধোলাই খেয়েছে ব্রেন্ডন ম্যাককুলামের কাছে। নিউজিল্যান্ড ম্যাচ জিতেছে ৮ উইকেটে।

ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা যেমন নাকাল হয়েছে টিম সাউদির বোলিংয়ে। তেমনি বোলাররাও ধোলাই খেয়েছে ব্রেন্ডন ম্যাককুলামের কাছে। নিউজিল্যান্ড ম্যাচ জিতেছে ৮ উইকেটে।নিউজিল্যান্ডের কাছে দাঁড়াতেই পারেনি ইংল্যান্ড। ব্যাটসম্যানরা যেমন নাকাল হয়েছে টিম সাউদির বোলিংয়ে। তেমনি বোলাররাও ধোলাই খেয়েছে ব্রেন্ডন ম্যাককুলামের কাছে। নিউজিল্যান্ড ম্যাচ জিতেছে ৮ উইকেটে। ইংলিশদের করা ১২৩ রানের জবাবে ১২.২ ওভারে ২ উইকেটে ১২৫ রান করেছে কিউইরা।

চলতি বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বে ৩ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় জয় এটি। ফলে কোয়ার্টার ফাইনালের খুব কাছাকাছি চলে গেছে চলতি বিশ্বকাপের এই সহ-আয়োজক দলটি। আর ইংল্যান্ড প্রথম ২ ম্যাচের দুটিতেই হেরে গেছে।

মধ্যাহ্ণ বিরতির আগেই জয় তুলে নিতে পারত নিউজিল্যান্ড। সেভাবেইে এগুচ্ছিল সবকিছু। তবে হঠাৎ ম্যাককুলাম আউটে তা আর হয়নি। জয় থেকে মাত্র ১২ রান পেছনে থেকে বিরতিতে যেতে হয়েছে। ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম দারুণ ব্যাটিং করেছেন। ১৮ বলে কেরেছেন হাফসেঞ্চুরি। যা বিশ্বকাপে দ্রুততম। শেষ পর্যন্ত ২৫ বল থেকে ৭৭ রান করে আউট হয়ে গেছেন তিনি। ঝড়ো ইনিংসে ৮টি চার ও ৭টি ছক্কার মার রয়েছে। এছাড়া মার্টিন গাপটিল করেছেন ২২ রান।

এর আগে নিউজিল্যান্ডের বোলার টিম সাউদির বোলিং ঝরে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন। ৩৩.২ ওভারে মাত্র ১২৩ রানে অলআউট হয়ে গেছে ইয়ান মরগানের দল। সাউদি ৩৩ রান দিয়ে নিয়েছেন ৭টি উইকেট।

বিশ্বকাপে এর আগে ৭ উইকেট নেয়ার রেকর্ড আছে ২টি। ২০০৩ সালে নামিবিয়ার বিপক্ষে ১৫ রানের বিনিময়ে ৭ উইকেট নিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার গ্লেন ম্যাকগ্রা। একই আসরে আরেক অসি বোলার অ্যান্ডি বিকেল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২০ রান দিয়ে ৭ উইকেট নিয়েছিলেন।

শুক্রবার ওয়েলিংটনে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামে ইংল্যান্ড। তবে শুরু থেকেই কিউই বোলারদের চাপের মুখে ছিলেন তারা। দলীয় ৫৭ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে ইংল্যান্ড। চাপ কাটাতে জো রুট ও ইয়ান মরগান চেষ্টা করেছেন। সেই চেষ্টায় সফল হতে পারেননি ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা।

দলীয় ১০৪ রানে ফিরে গেছেন মরগান। এর পরপরই একপ্রান্ত থেকে তাকে অনুসরণ করেছেন জেমস টেলর, জোস বাটলার, ক্রিস ওয়েকস, স্টুয়ার্ট । অপরপ্রান্ত আগলে রাখার চেষ্টা করছেন রুট। শেষ পর্যন্ত রুটও ফিরে গেছেন ইনিংস সর্বোচ্চ ৪৬ রান করে।

অন্য ব্যাটসম্যানদের মধ্যে মঈন আলী ২০, মরগান ১৭ ও গ্যারি ব্যালেন্স ১০ রান করেছেন। আর কেউ ২ অঙ্কের দেখা পাননি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ইংল্যান্ড : ১২৩/১০, ওভার ৩৩.২ (জো রুট ৪৬, মঈন আলী ২০, মরগান ১৭; টিম সাউদি ৭/৩৩, ভেট্টরি ১/১৯, মিলনে ১/২৫, বোল্ট ১/৩২)

নিউজিল্যান্ড : ১২৫/২, ওভার ১২.২ (ম্যাককুলাম ৭৭, গাপটিল ২২; ওয়েকস ২/৮)

ফল : নিউজিল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচসেরা : টিম সাউদি (নিউজিল্যান্ড)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *