বাংলাওয়াশের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

ড্যান কেক সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে বুধবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়।

ড্যান কেক সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে বুধবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়।পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৬ বছরের শৃঙ্খল ভেঙে এসেছে জয়। বাংলাদেশ খেলেছে শ্রেয়তর বা ফেবারিট দলের মতোই। তামিম ইকবাল টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছেন। এক ম্যাচে দুই সেঞ্চুরি হয়েছে। সর্বোচ্চ দলীয় রান, সর্বোচ্চ রানের জুটি এসেছে। সিরিজ জয়ও ধরা দিয়েছে।

তুলির শেষ আচড় হিসেবে রয়ে গেছে, সিরিজে পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করা। যা এখন গোটা বাংলাদেশে ‘বাংলাওয়াশ’ নামেই প্রচলিত।

আর বাংলাওয়াশের লক্ষ্যে অবিচলও বাংলাদেশ দল। সিরিজের সেরা দলটি মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বেই খেলছে। বাংলাওয়াশের সুযোগ হাতছানি দিচ্ছে। সেটা লুফে নেয়ার লোভটা পরিপূর্ণভাবেই বিরাজ করছে টাইগারদের মাঝে। ড্যান কেক সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে বুধবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচ শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়। জিটিভি ম্যাচটি সম্প্রচার করবে।

অতীতে নয়বার প্রতিপক্ষকে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করেছে বাংলাদেশ। পাকিস্তানকে কাল হারাতে পারলেই বাংলাওয়াশের সংখ্যাটা দুঅঙ্কের স্পর্শ করবে। মাশরাফিরাও সেদিকে চোখ রাখছেন। আগের দুই ম্যাচের পারফরম্যান্সই দুদলের পার্থক্যটা স্পষ্ট করে দিয়েছে। দুই ম্যাচেই বাংলাদেশের ওপেনাররা ভালো শুরু এনে দিয়েছেন। পরে তামিম-মুশফিক মিলে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেছেন দলকে। যে কারণে মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানদের সেভাবে মাঠে নামতে হয়নি। যেমনটা নাসির হোসেন প্রথম ম্যাচে তিন রান করলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটই করতে পারেননি। সাকিবকেও ব্যাট হাতে বড় পরীক্ষা দিতে হয়নি।

আবার মিডল অর্ডার অব্যবহৃত থাকাই চিন্তার কারণ হতে পারে বাংলাদেশের। তবে উজ্জীবিত বাংলাদেশের সবই ইতিবাচক পথেই হাঁটছে। বোলিংটাও ভালো হচ্ছে। পাকিস্তানের ব্যাটিং লাইনকে থিতু হতে দিচ্ছেন না মাশরাফি, আরাফাত সানি, রুবেলরা। অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান হাফিজ, ফাওয়াদ আলমরা ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে পারেননি।

অন্যদিকে সিরিজ হেরে গেলেও বাংলাওয়াশের লজ্জা এড়াতে বদ্ধ পরিকর পাকিস্তান দল। মঙ্গলবার মিরপুরে লম্বা সময় অনুশীলন করেছে সফরকারীরা।

কোচ ওয়াকার ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন দলকে নিয়ে। ওয়ানডে দলে যোগ দেওয়া উমর গুল, টি-২০ খেলতে আসা শহীদ আফ্রিদি, আহমেদ শেহজাদ, সোহেল তানভীররাও সর্বোচ্চ উজাড় সাহায্য করছেন ওয়ানডে দলের তরুণ ক্রিকেটারদের। কিন্তু ভাগ্য বদল হবে কিনা বলা কঠিন। কারণ বর্তমান বাংলাদেশ দলকে ছাপিয়ে যেতে এই পাকিস্তান দলের সেরা ক্রিকেটই খেলতে হবে। যেটা মাশরাফিরা হতে দিতে চাইবেন না কোনোভাবেই। পাকিস্তানের বোলিং আক্রমণ কাল আরও সমৃদ্ধ হতে পারে। উমর গুল খেলতে পারেন। সঙ্গে হাফিজও বোলিং করতে পারেন।

উইনিং কম্বিনেশন না ভাঙার সম্ভাবনাই বেশি বাংলাদেশের। পাকিস্তানের একাদশে আসতে পারে পরিবর্তন। পেসার রাহাত আলীকে বসিয়ে একাদশে আসতে পারেন উমর গুল। আর স্পিনার বাবর আজমকেও দেখা যেতে পারে একাদশে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *