‘দেশে পঁচাত্তর পূর্ববর্তী ভয়াবহ ডাকাতি ফিরে এসেছে’

দেশ থেকে হারিয়ে যাওয়া পঁচাত্তর সালের পূর্ববর্তী ভয়াবহ ডাকাতির ঘটনা আবারো ব্যাপকভাবে ফিরে এসেছে বলে দাবি করেছে বিএনপি।

দেশ থেকে হারিয়ে যাওয়া পঁচাত্তর সালের পূর্ববর্তী ভয়াবহ ডাকাতির ঘটনা আবারো ব্যাপকভাবে ফিরে এসেছে বলে দাবি করেছে বিএনপি।দেশ থেকে হারিয়ে যাওয়া পঁচাত্তর সালের পূর্ববর্তী ভয়াবহ ডাকাতির ঘটনা আবারো ব্যাপকভাবে ফিরে এসেছে বলে দাবি করেছে বিএনপি।

শুক্রবার সকালে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে দলটির মুখপাত্র ড. অসাদুজ্জামান রিপন এই দাবি করেন।

তিনি বলেন, ‘১৯৭৫ সালের আগে দেশে ডাকাতির প্রকোপ ছিল। দেশে এখন ’৭৫ পূর্ববর্তী সেই ডাকাতি ফিরে এসেছে।’

বিএনপির এই আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক আরো বলেন, ‘কেবল ডাকাতি নয়, ডাকাতির সঙ্গে ব্যাপকহারে নারীদের সম্ভ্রমহানি হচ্ছে, যা অ্যালার্মিং বিষয়।’

প্রতিদিন ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণহানিকে সরকার এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর ব্যর্থতা হিসেবে দেখছেন তিনি।

আসাদুজ্জামান রিপন ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে বলেন, ‘দেশের কোথাও জনগণের জীবন ও জানমালের নিরাপত্তা নেই। সরকার চাইলে সব পারে। কারণ নির্বাচিত সরকার না হলেও তাদের কথায় ‘বন্দুক’ চলে। তাই জনগণের নিরাপত্তা দেওয়াও তাদের দায়িত্ব।’

তিনি বলেন, ‘সরকার জনগণের জানমালের দিকে খেয়াল করছে না। তাদের খেয়াল কী করে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের মামলা-হামলা দিয়ে হয়রানি করা যায়। জনগণের কথা, দেশের কথা চিন্তা করলে তারা রাস্তাঘাটের উন্নয়ন করত। সড়ক দুর্ঘটনা শূন্যের কোটায় নিয়ে আসত।’

এবার দেশে নৌ-দুর্ঘটনায় মানুষ মারা না যাওয়ায় বিএনপির মুখপাত্র আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করেন। বলেন, ‘আমরা সবাই আল্লাহর কাছে দোয়া করছিলাম যাতে ঈদ ও ঈদ পরবর্তিতে দেশে কোনো নৌ-দুর্ঘটনা না ঘটে। মানুষের প্রাণহানি যাতে না হয়। আল্লাহ আমাদের দোয়া কবুল করেছেন। এজন্য আমরা তার কাছে শুকরিয়া জানাচ্ছি।’

তিনি ছাত্রলীগের কাউন্সিলে ছাত্রদল নেতাদের ‘দাওয়াত’ দেওয়াকে দেশের রাজনীতির জন্য ‘ইতিবাচক’ ও ‘আশা জাগানিয়া’ বলে মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘গতকাল বৃহস্পতিবার দেশে একটি সুন্দর ও ইতিবাচক ঘটনার জন্ম হয়েছে। দেশের সংঘাতের রাজনীতির মধ্যে এ ছোট্ট ঘটনাটি দেশের রাজনীতির জন্য অত্যন্ত ইতিবাচক।’

রিপন বলেন, ‘ছাত্রলীগের সম্মেলনে ছাত্রদল নেতাদের আমন্ত্রন জানানো একটি শুভ লক্ষণ। একই সঙ্গে দাবি করছি- ছাত্রদল সভাপতিকে অবিলম্বে মুক্তি দিন, যাতে সে ছাত্রলীগের কাউন্সিলে যেতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘সরকার চাইলে সবকিছুই সম্ভব। তিনি জামিন পেলে ছাত্রলীগের সম্মেলনে অবশ্যই যাবেন, ছাত্রদলের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানিয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাদের আমন্ত্রণ জানানোয় ছাত্রলীগকে ধন্যবাদ।’

ব্রিফিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, নাজিম উদ্দিন আলম, সহ-স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *