গাপটিলের অসাধারণ ডাবল সেঞ্চুরি

বিশ্বকাপের প্রথম ৫ ম্যাচে মার্টিন গাপটিলের রান যথাক্রমে ৪৯, ১৭, ২২, ১১, ৫৭। আর সেই তিনি বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি উপহার দিলেন।

বিশ্বকাপের প্রথম ৫ ম্যাচে মার্টিন গাপটিলের রান যথাক্রমে ৪৯, ১৭, ২২, ১১, ৫৭। আর সেই তিনি বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি উপহার দিলেন।বিশ্বকাপের প্রথম ৫ ম্যাচে মার্টিন গাপটিলের রান যথাক্রমে ৪৯, ১৭, ২২, ১১, ৫৭। আর সেই তিনি বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি উপহার দিলেন। সেঞ্চুরি করেছিলেন ১১১ বলে। একটি ছক্কার মারও নেই তাতে। ১২টি বাউন্ডারি ছিল। কিন্তু পরের ১০০ রান এলো ৪১ বলে। ছক্কার মার ৮টি।

কোয়ার্টার ফাইনালের মত বিগ ম্যাচে এসে অসাধারণ কীর্তিটা গড়ে ফেললেন গাপটিল। শুধু তাই নয়, একই সঙ্গে ক্রিস গেইলকে পেছনে পেলে বিশ্বকাপে ব্যাক্তিগত সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটাও গড়ে ফেললেন গাপটিল। গেইলের উস্থিতিতেই ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানবের রেকর্ড ভাঙলেন তিনি।

কয়েকদিন আগেই বিশ্বকাপে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। খেলেছিলেন বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ব্যাক্তিগত ২১৫ রানের ইনিংস। মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানে সেটাকে ছাড়িয়ে গেলেন গাপটিল। স্থাপন করলেন অপরাজিত ২৩৭ রানের বিশাল ইনিংস।

১৬৩ বলে খেলা গাপটিলের অসাধারণ এই ইনিংসটি সাজানো ছিল ২৪টি বাউন্ডারি আর ১১টি ছক্কায়। সবচেয়ে বড় কথা ১১১ বলে ক্যারিয়ারের ৬ষ্ঠ সেঞ্চুরি করার পথে একটিও ছক্কার মার ছিল না। বাউন্ডারি ছিল ১২টি। অথচ, পরের অংশে মেরেছেন ১১টি ছক্কার মার। বাউন্ডারি আরও ১২টি। অসাধারণ এই ইনিংস দিয়ে নিউজিল্যান্ড চড়িয়েছেন ৩৯৩ রানের রানের পাহাড়ে।

বড় ম্যাচের নায়কই বলা হয় মার্টিন গাপটিলকে। বড় ম্যাচেই নিজের যোগ্যতার প্রমান রাখলেন। ওয়েলিংটনের ওয়েস্টপ্যাক স্টেডিয়ামে সেমি ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ব্যাট করতে নেমে অসাধারণ এক সেঞ্চুরি উপহার দিলেন কিউইদের এই ওপেনার।

অথচ, চার রানর মাথায় শট মিড উইকেটে মারলন স্যামুয়েলসের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন গাপটিল। সহজ ক্যাচটি স্যামুয়েলস মিস না করলে ২৩৭ রানের বিশাল এই ইনিংসটি দেখাই হতো না কারও।

যখন অপর ওপেনার ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম আর টপ অর্ডার কেনে উইলিয়ামসন দ্রুত ফিরে গেলেন, তখন দুর্দান্ত এক ইনিংস উপহার দিলেন গাপটিল।

ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে গাপটিলের ইনিংসটি ষষ্ঠবারের মতো ডাবল সেঞ্চুরির দৃষ্টান্ত। তবে ইতিহাসের পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে এই মাইলফলক স্পর্শ করেছেন নিউজিল্যান্ডের এই ২৯ বছর বয়সী ওপেনার। কেননা ভারতের রোহিত শর্মা দু’বার ডাবল সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন।

ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংসের (২৬৪ রান) রেকর্ডটি রোহিত শর্মারই। এতদিন এই তালিকার দ্বিতীয় স্থানে ছিল ভারতেরই আরেক ব্যাটসম্যান বিরেন্দ্র সেওয়াগের ২১৯ রানের ইনিংসটি। শনিবার শেওয়াগকে হটিয়ে দ্বিতীয় স্থান নিজের দখলে নিয়েছেন মার্টিন গাপটিল।

এদিকে নিউজিল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপ তথা ওয়ানডে ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন গাপটিল। শুধু তাই নয়, নিউজিল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপের ইতিহাসে পর পর দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন তিনি।

এখানেই শেষ নয়; অপরাজিত ২৩৭ রানের ইনিংসটির সুবাদে আরও দুটি রেকর্ডের মালিক হয়েছেন গাপটিল। বিশ্বকাপের ইতিহাসে কোনো নকআউট ম্যাচে একমাত্র ডাবল সেঞ্চুরিয়ান হিসেবে লেখা হয়েছে তার নাম। অন্যদিকে তিনিই নিউজিল্যান্ডের একমাত্র ক্রিকেটার যিনি ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে দু’বার ১৫০-এর বেশী রানের ইনিংস খেলেছেন। ২০১৩ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৮৯ রানের একটি ইনিংস খেলেছিলেন মার্টিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *