সরিতার বাবা ছেলেমেয়েদেরকে দেশের বাড়ি রেখে সরিতার মাকে বিয়ে করে এখানে চলে আসে একদিন এবং তারপর দেশের সাথেও যোগাযোর্গ রাখেন। কারণ, কিছু জমিজমা আছে সেখানে। বড় দুই দাদার থেকে সরিতা অনেকটাই ছোটো কিন্তু সরিতার জন্মের পর থেকেই ওর মা ঘন ঘন অসুস্থ হয়, ছয় সাত বছর যখন বয়স মা তখন শয্যাশায়ী হয়। এই সময় সংসারের দেখভালের জন্য দেশের থেকে এক বিধবাকে নিয়ে আসে, যাকে সরিতা মাসী বলে ডাকতো, মাসীও সরিতাকে মায়ের মতো আদর-যত্ন মায়ের দেখভালসহ সংসার সমলানো কোনো কমতি ছিল না কিন্তু একটু বড়ো হয়ে সরিতা বুঝতে পারে সবকিছু সেবার সাথে সাথে বাবার চাহিদাও খুব ভালোভাবে মেটাচ্ছে মাসী, এতে সরিতার কোনো অভিযোগ ছিলো না, মা তো তখন আজ যায় কি কাল যায় অবস্থা।
সাময়িকী

ছোটগল্পঃ সরিতা বৃত্তান্ত

।। মৌমিতা দাশগুপ্ত ।।  লোকটা এখনো কেনো এলো না। আজ তো ছেলেমেয়েদেরকে মেলায় নিয়ে যাবার কথা। যতই পার মাতাল হোক, কথার তো নড়চড় হয় না। মাতালটা আবার গর্ব করে বলে, ‘আমার কথা কিন্তু কথা, এর নড়চড় হয় না বুঝলি সরিতা? তো সেই এক কথার মানুষটা গেলো কোথায়। এদিকে সন্ধ্যা গড়িয়ে রাতের দিকে যাচ্ছে মেলার মাঠ […]