৬৯ দিন পর স্বামীর সাক্ষাত পেলেন হাসিনা

ভারতের শিলং সিভিল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে দেখা করেছেন তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ।

ভারতের শিলং সিভিল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে দেখা করেছেন তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ। ভারতের শিলং সিভিল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে দেখা করেছেন তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন ছোট বোনের স্বামী মাহবুবুল কবির ও বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি।

সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে দীর্ঘ ৬৯ দিন পর স্বামীর সঙ্গে দেখা করলেন তিনি।

সাড়ে ৮টার দিকে হাসপাতালে যাওয়ার ২০ মিনিট মতো পরেই তিনি সেখান থেকে বেরিয়ে আসেন।

সামান্য কথাতে হাসিনা আহমেদ যা বলেছেন তাতে বোঝা যাচ্ছে- পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়ার উপরই বেশি জোড় দিচ্ছেন তিনি। হাসিনা আহমেদ বলেছেন, আগামীকালই তিনি আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলবেন।

এছাড়া সালাহ উদ্দিনের চিকিৎসা করাতে তাকে তৃতীয় কোনো দেশে নেয়ারও চেষ্টা চালাবেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন হাসিনা আহমেদ। তিনি জানিয়েছেন, এ জন্য চিকিৎসকের সঙ্গেও কথা বলবেন তিনি।

সাংবাদিকদের সঙ্গে সামান্য কথপোকথনে ভারতীয় সরকার এবং প্রশাসনকেও ধন্যবাদ জানান হাসিনা।

রোববার রাতে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে কলকাতার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন হাসিনা আহমেদ। দুই মাস ধরে নিখোঁজ থাকা স্বামীর খোঁজ দিন কয়েক আগে পেলেও ভিসা জটিলতায় ভারতে যেতে পারছিলেন না তিনি।

রোববার বিকেলে ভিসা পেয়ে রাতেই কলকাতা পৌঁছানোর পর সোমবার সকালে কলকাতা থেকে একটি বিমানে করে শিলংয়ে পৌঁছান হাসিনা আহমেদ।

রোববার বিকালে ভিসা পেয়ে রাতেই ঢাকা ছাড়েন হাসিনা আহমেদ। ওই দিন রাত ৯টা ৫০ মিনিটে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ভারতের কলকাতার উদ্দেশে রওনা দেন। এরপর বেলা ১২টার জেট এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে তিনি গোহাটি আসেন। সেখান থেকে বাইরোডে শিলং এসে পোঁছান। বিকাল নাগাদ তিনি শিলং এসে পৌঁছান। শিলং এসে স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে এসপি’র অনুমতি নেন।

শিলংয়ে আগে থেকেই আছেন বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি। তিনিও সালাহ উদ্দিনের সঙ্গে দেখা করে তার স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর নেন।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বছরপূর্তিকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট রাজনৈতিক উত্তাপের মধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও রুহুল কবীর রিজভী গ্রেফতার হলে বিএনপির মুখপাত্রের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন সালাহ উদ্দিন। অজ্ঞাত স্থান থেকে গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়ে তিনিই ২০ দলীয় জোটের কর্মসূচির জানান দিয়ে আসছিলেন।

এরই মধ্যে ১১ মার্চ সালাহ উদ্দিনের স্ত্রী ও বিএনপির তরফ থেকে দাবি করা হয় ১০ মার্চ রাতে তাকে আটক করে নিয়ে যায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তবে প্রথম থেকেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বলে আসছিল তারা সালাহ উদ্দিনকে আটক করেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *