৫ মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন
জাতীয়

৫ মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন

৫ মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনপাঁচ মামলাতেই জামিন পেয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। মামলাগুলো হলো- গুলশান থানার নাশকতা মামলা, রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা, গ্যাটকো দুর্নীতি মামলা, যাত্রাবাড়ীতে গাড়ি পোড়ানোর মামলা ও যাত্রাবাড়ী থানার হত্যা মামলা।

মঙ্গলবার পৃথক পৃথক আদালতে আত্মসমর্পণ ও হাজির হয়ে এসব মামলায় জামিন পান তিনি।

প্রথমে বেলা ১০টা ৪০ মিনিটে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত খালেদা জিয়া আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। পরে বেলা ১১টা ২০ মিনিটে দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা তা মঞ্জুর করেন।

এরপর গ্যাটকো দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া তার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়ার মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে ঢাকার বিশেষ জজ-৩ আদালতের বিচারক আবু আহমেদ জমাদার জামিনের আদেশ দেন।

বেলা সোয়া ১২টায় ঢাকার মহানগর হাকিম জাকির হোসেনের আদালতে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বক্তব্য দেয়ায় রাষ্ট্রদ্রোহের একটি মামলায় ৫ হাজার টাকা মুচলেকা দিয়ে খালেদা জিয়া জামিন পান।

গত বছরের ২১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আজকে বলা হয় এত লাখ শহীদ হয়েছে, এটা নিয়েও অনেক বিতর্ক আছে।’

খালেদা জিয়া বক্তব্যে আরো বলেন, ‘তিনি (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) বাংলাদেশের স্বাধীনতা চাননি। তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলে মুক্তিযুদ্ধ হতো না।’ যা পরদিন বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রচার হয়।

বাদী মামলার বিবরণে অভিযোগ করেন, আসামির এ ধরনের বক্তব্য শহীদদের অবমাননাসহ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ সৃষ্টি ও এর ইতিহাসের বিরুদ্ধে নিন্দাবাদ, ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচারের অপরাধের শামিল। এ ধরনের বক্তব্য রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

এরপর বেলা সাড়ে ১২টায় গুলশান থানার নাশকতার মামলায় ঢাকার মহানগর হাকিম কায়সারুল ইসলাম ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় বিএনপি চেয়ারপারসনের জামিন মঞ্জুর করেন।

সর্বশেষ বেলা ১টার দিকে যাত্রাবাড়ী থানার হত্যা মামলায় ঢাকার মহানগর হাকিম মারুফ হোসেন খালেদা জিয়ার জামিন মঞ্জুর করেন।

এর আগে সকাল সোয়া ৯টার দিকে গুলশানের বাসভবন ফিরোজা থেকে রওনা দিয়ে সকাল সাড়ে ১০টায় আদালত প্রাঙ্গনে পৌঁছান খালেদা জিয়া।

এর ১০ মিনিটর পর তিনি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত ভবনের দ্বিতীয় তলার আদালত কক্ষে যান। সেখানে গ্রেফতারি পরোয়ানা সংক্রান্ত যাত্রাবাড়ীর মামলায় আত্মসমর্পণ করে তিনি আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করেন।

গত ৩০ মার্চ যাত্রাবাড়ীতে বাসে পেট্রোলবোমা মেরে মানুষ হত্যার ঘটনায় করা বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসনসহ ২৮ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লার আদালত।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *