ইয়েমেনে কর্মরত ১৬ বাংলাদেশী উদ্ধার

ইয়েমেনে কর্মরত বাংলাদেশীদের মধ্যে ১৬ জনকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ইয়েমেনে কর্মরত বাংলাদেশীদের মধ্যে ১৬ জনকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ইয়েমেনে কর্মরত বাংলাদেশীদের মধ্যে ১৬ জনকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ইয়েমেনের সানা শহর থেকে ভারতের সহযোগিতায় দেশটির ‘তারকাশ’ জাহাজের মাধ্যমে প্রতিবেশী রাষ্ট্র জিবুতিতে ওই বাংলাদেশীদের সরিয়ে নেওয়া হয়।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সৈয়দ আববরউদ্দীন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই তথ্য জানান।

জানা গেছে, ২৬টি দেশের ২৩২ জনকে মঙ্গলবার ইয়েমেন থেকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয় ভারত। এর মধ্যে ১৬ জন বাংলাদেশী রয়েছেন। এর আগে ভারতের সহযোগিতায় গত ৬ এপ্রিল আরও ৩ জন বাংলাদেশীকে নিরাপদ স্থানে স্থানান্তর করা হয়। এ নিয়ে মোট ১৯ জন বাংলাদেশী নিরাপদে উদ্ধারের তথ্য পাওয়া গেল।

এদিকে, বাংলাদেশীদের উদ্ধারের ঘটনা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের পরিচালক বিএম জামাল হোসেন বলেন, ‘আমাদের কাছে এই মুহূর্তে কোনো তথ্য নেই। তবে উদ্ধার কাজ চলছে।’

এদিকে ইয়েমেনে কর্মরত বাংলাদেশীদের সহায়তার জন্য যে হেল্প লাইন চালু করা হয়েছে, ওই নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করে তা বন্ধ পাওয়া গেছে। হেল্প লাইনগুলো হচ্ছে ০০৯৬৫-৫০৫৭ ০৭৫৪ এবং ০০৯৬৫-৯৪৯৩ ৪৩৬৩। এ ছাড়া হেল্প লাইনের ঢাকার নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করে দেখা গেছে, ওই নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করলে রিং হয় কিন্তু কেউ রিসিভ করেন না। ঢাকার নম্বরগুলো হচ্ছে ০১৭১২৬২৬০৯৬৭ এবং ০১৭১১৩৮০৩৭৪।

এর আগে, সোমবার রাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাউন্সিলর এস এম মাহবুবুল আলম (তিনি জিবুতিতে অবস্থান করে উদ্ধার কার্যক্রম দেখভাল করছেন) বলেন, ভারতের সহায়তায় সোমবার রাতে সানা থেকে ২৫ জনকে এবং পার্শ্ববর্তী শহর থেকে ১৫০ জনকে জাহাজে করে জিবুতিতে নিয়ে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে প্রকৃতপক্ষে কতজন আসতে পারবে তা নিয়ে সন্দেহ আছে। কেননা ইয়েমেনে এখন যুদ্ধ চলছে।

মাহবুবুল আলম বলেন, ইয়েমেন এ কতজন বাংলাদেশী আছেন তার কোনো তথ্য নেই। এখন পর্যন্ত ৫০০ জনের তালিকা পেয়েছি। এর মধ্যে অনেকে বাংলাদেশে ফিরতে চায় আবার কেউ কেউ ফিরতে চায় না।

ইয়েমেনে বাংলাদেশীদের উদ্ধার তৎপরতা নিয়ে কাউন্সিলর এস এম মাহবুবুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য মঙ্গলবার দুপুর থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত (বিরতি দিয়ে) তার মোবাইলে (+২৫৩৭৭১৯৯২৮৩, +২৫৩৭৭১৯৯২৮২) চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

ইয়েমেনে প্রায় ৩০০০ বাংলাদেশী কর্মরত আছেন। তারা সবাই তেলক্ষেত্র, মাছ ধরার জাল বানানোর কারখানা, হাসপাতাল, সমুদ্রে মাছ ধরাসহ বিভিন্ন পেশার সঙ্গে জড়িত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *