‘১৫ আগস্ট পুরো বাঙালি জাতির ওপর আঘাত’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৫ আগস্টে হামলা শুধু একটি পরিবার নয়, পুরো বাঙালি জাতির ওপর আঘাত।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৫ আগস্টে হামলা শুধু একটি পরিবার নয়, পুরো বাঙালি জাতির ওপর আঘাত।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৫ আগস্টে হামলা শুধু একটি পরিবার নয়, পুরো বাঙালি জাতির ওপর আঘাত। এ হত্যাকাণ্ডের মূল কারণ ছিল স্বাধীনতাযুদ্ধে পরাজয়ের প্রতিশোধ।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে কৃষক লীগের স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি উদ্বোধন শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

৪০ বছর আগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নৃশংস হত্যাকাণ্ড এবং ৪০তম জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কৃষক লীগ এ রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু নিজেই বলে গেছেন, সাত কোটি বাঙালিকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না। কেউ পারেনি। বাংলাদেশকে এখন আর কেউ অবহেলার চোখে দেখে না।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতেই নির্মমভাবে তার পরিবারের সব সদস্য, ভাগিনা এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তাসহ বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে।

শেখ হাসিনা বলেন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে পরাজিত করা এবং স্বাধীন জাতি হিসেবে বাঙালি জাতির বিজয়ের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়াই ছিল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড।

তিনি বলেন, খুনিরা চেয়েছিল যাতে বাঙালি জাতি আর কোনদিন মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে। নীল নকশা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী জাতীয় চার নেতাকে তারা ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারে নির্মমভাবে হত্যা করে।

প্রধানমন্ত্রী স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘মাত্র ১৫ দিন আগে পুত্র জয় ও কন্যা পুতুল এবং একমাত্র জীবিত বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে জার্মানি যাই। আমরা ভাবতেও পারিনি যে, আমাদের জন্য এ রকম দুর্যোগ অপেক্ষা করছে।’

কান্নাভেজা কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘আমরা সবাইকে দেশে রেখে গিয়েছিলাম। মাত্র ১৫ দিন পরে আমরা একই সময়ে তাদেরকে হারিয়েছিলাম, এটা কতটা বেদনাদায়ক ছিল!’

শেখ হাসিনা দাবি করেন, খুনি মোশতাক ও জিয়াউর রহমান ক্ষমতা কুক্ষিগত করে এবং তাকে দেশে ফিরতে বাধা দেয়। কিন্তু যখন আওয়ামী লীগ তাকে (শেখ হাসিনা) দলের সভাপতি নির্বাচিত করে তখন তিনি সে সব প্রতিবন্ধকতা ভেঙ্গে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন।

তিনি বলেন, খুনিচক্র একই সময়ে তিনটি বাড়িতে হামলা চালায় এবং ঠান্ডা মাথায় নিরিহ নারী ও শিশুসহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদেরকে হত্যা করে।

এমনকি খুনিরা কৃষক লীগ নেতা ও বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের এবং তার দুই মেয়ে, ছোট ছেলে এবং নাতিসহ বাড়ির আরো ১৬ জনকে হত্যা করে।

কৃষক লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেনের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ড. আবদুর রাজ্জাক, ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এমপি।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে গড়ে তোলার কথা বলেছিলাম। ২০১৫ সালের মধ্যেই তা করতে পেরেছি। ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলব ইনশাল্লাহ।

মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার পেছনে বাংলার কৃষকদের সবচেয়ে বড় অবদান রয়েছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু বারবার কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নের কথা বলতেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *