হাইটেক পার্কে বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে

২৩২ একর জায়গা নিয়ে নির্মিত এই হাইটেক পার্কে দেশ-বিদেশের বিনিয়োগকারীরা ইতোমধ্যে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে।

২৩২ একর জায়গা নিয়ে নির্মিত এই হাইটেক পার্কে দেশ-বিদেশের বিনিয়োগকারীরা ইতোমধ্যে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে।তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, দেশে ডিজিটাল ইকোনমির নতুন দুয়ার খুলেছে। কালিয়াকৈরের হাইটেক পার্ক আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ডিজিটাল ইকোনমিতে বড় একটা ভূমিকা রাখবে। এখানে বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো বিনিয়োগ করবে। ফলে এখানে এক লাখ তরুণের কর্মসংস্থান হবে।

তিনি বৃহস্পতিবার সকালে গাজীপুরের কালিয়াকৈরের হাইটেক পার্কের আট তলা বিশিষ্ট প্রথম ভবনের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ২৩২ একর জায়গা নিয়ে নির্মিত এই হাইটেক পার্কে দেশ-বিদেশের বিনিয়োগকারীরা ইতোমধ্যে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে। বিশ্বের পঞ্চম বৃহৎ ডাটা সেন্টার এই হাইপার্কেই তৈরি হবে। তথ্য ও প্রযুক্তি শিল্পকে আরও সমৃদ্ধ করতে এখানে ডিজিটাল শহর নির্মিত হবে।

পলক আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের গ্রাউন্ড স্টেশন এই হাইটেক পার্কেই হচ্ছে। এই প্রকল্পকে সরকার সর্বোচ্চ গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে।

পলক জানান, ১৯৯৯ সালে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসে হাইটেক পার্ক নির্মাণের জন্য সম্ভাব্যতা খতিয়ে দেখে। সে বছরের বিনিয়োগ বোর্ডের ১২ তম সভায় হাইটেক নিমার্ণের জন্য প্রস্তাব করা হয়। এরপর নতুন সরকার ক্ষমতায় আসলে এই পার্ক নিমার্ণের জন্য আর কোনে উদ্যোগ নেয় না। বর্তমান সরকার ২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ স্লোগানে ক্ষমতায় এসে হাইটেক পার্ক নির্মাণের জন্য ফের উদ্যোগ নেয়। যার ফলশ্রুতি হাইটেক পার্ক নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জানান, হাইটেক পার্কের ৩ নম্বর ব্লকের উন্নয়নের লক্ষ্যে নতুন ভবনের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী এক বছরের মধ্যে আটতলা বিশিষ্ট এই ভবনটি নির্মাণ কাজ শেষ হবে। ভবন নির্মাণের এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে ফ্যাইবার অ্যাট হোমের কনসোর্টিয়াম বাংলাদেশ টেকনোসিটি লিমিটেড

এর আগে জুনাইদ আহমেদ পলক হাইপার্ক এলাকার বাসিন্দাদের জন্য নির্মিত একটি বিকল্প সড়ক উদ্বোধন করেন। এছাড়া হাইটেক পার্কের জন্য সেবা ভবণের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করেন তিনি।

এরপর তিনি হাইটেক পার্ক এলাকা ঘুরে দেখেন। এসময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন, হাইটেক পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এসএম আলম, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং আইসিটি বিভাগের কর্মকর্তা, বাংলাদেশ টেকনোসিটি লিমিটেডের চেয়ারম্যান মইনুলসহ তথ্য ও প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *