বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের চলমান হরতাল আরো ৪৮ ঘণ্টা বেড়েছে। শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত হরতাল বাড়ানো হয়েছে।
জাতীয়

হরতাল বাড়ল শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের চলমান হরতাল আরো ৪৮ ঘণ্টা বেড়েছে। শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত হরতাল বাড়ানো হয়েছে।বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের চলমান হরতাল আরো ৪৮ ঘণ্টা বেড়েছে। শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত হরতাল বাড়ানো হয়েছে।

মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ এ ঘোষণা দেন।

সালাহ উদ্দিন বলেন, “চলমান অবরোধ কর্মসূচির পাশাপাশি আবারো বুধবার সকাল ছয়টা থেকে শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত দেশব্যাপী সর্বাত্মক হরতাল কর্মসূচি বাড়ানো হলো। ওই হরতাল কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করতে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীসহ দেশবাসীকে খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে আহবান জানাচ্ছি। গণদাবির বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের আন্দোলন থেকে পিছপা হবে না ২০ দলীয় জোট। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন চালিয়ে যেতে আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ।”

তিনি বলেন, “আওয়ামী সরকার অবৈধ ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে এমন কোনো অপকর্ম নেই যা তারা করছে না। সরকারকে যত সন্ত্রাস, কূটকৌশল ও ছলচাতুরীর আশ্রয় নিতে হোক না কেন, তবুও ক্ষমতার মসনদ ছাড়া যাবে না-এ যেন আওয়ামী সরকারের চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে অসৎ উদ্দেশ্যকে সামনে নিয়েই তারা জনপ্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবিকে বেআইনিভাবে বিরোধী দল দমনে সকল নিষ্ঠুর প্রক্রিয়ায় এগুচ্ছে।”

সালাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, “রাত নয়টার পর মহাসড়কে বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণার মধ্য দিয়ে প্রকারান্তরে সরকারের অস্তিত্বহীনতাকেই স্বীকার করে নেয়া হলো। অচিরেই সরকার দিনের বেলাতেও সকল সরকারি অফিস বন্ধ করে দিতে বাধ্য হবে।”

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী চলমান রাজনৈতিক সংকটকে মানবসৃষ্ট দুর্যোগ নামে অভিহিত করেছেন। মূলত পঞ্চদশ সংশোধনীর পক্ষে শেখ হাসিনার একক সিদ্ধান্ত ও ক্ষমতা চিরস্থায়ীকরণে তার উগ্র বাসনাই কথিত মানবসৃষ্ট দুর্যোগের উৎপত্তির কারণ এবং সেজন্য তিনি ও তার দল দায়ী।”

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব বলেন, “প্রকৃত অর্থে ক্ষমতা চিরস্থায়ীকরণে আওয়ামী উগ্র বাসনাই চলমান রাজনৈতিক সংকটের মূল কারণ। পেশীশক্তি তথা সন্ত্রাস, সহিংসতা ও নাশকতার এক বিভৎস পরিবেশ তৈরি করে অবৈধ ও ভোটারবিহীন সরকার বিরোধী দলের ন্যায়ভিত্তিক গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের আন্দোলনকে নস্যাৎ করতে চাচ্ছে। কিন্তু জনগণের প্রবল শক্তির কাছে নতি স্বীকার করা ছাড়া আওয়ামী অবৈধ সরকারের কোনো গত্যন্তর নেই।”

যুগ্ম মহাসচিব বলেন, “গণদাবি আদায়ের লক্ষ্যে চলমান আন্দোলনের গতি দেখে জোর করে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলকারীরা এখন তাদের পতনের প্রহর গুণছে। অজস্র নির্যাতনের শৃঙ্খল ভেঙেই এই আন্দোলন এখন চূড়ান্ত পরিণতির দিকে অগ্রসরমান। এই আন্দোলন গণতন্ত্র মুক্তি ও গণমানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলন। মানুষের নিশ্চিন্তে ভোট দেয়ার গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরে পাওয়ার আন্দোলন।”

সালাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, “সরকারের শত জুলুম নির্যাতনের পরও ২০ দলীয় জোটের ডাকা লাগাতার অবরোধ কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন দিনে ঘোষিত হরতাল অত্যন্ত স্বতঃস্ফুর্তভাবে সমর্থন ও সক্রিয় অংশগ্রহণ করে সাফল্যমণ্ডিত করার জন্য খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।”

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *