‘স্মার্ট’ হতে চাইলে এই ৭টি কাজ এড়িয়ে চলুন
সাময়িকী

‘স্মার্ট’ হতে চাইলে এই ৭টি কাজ এড়িয়ে চলুন

‘স্মার্ট’ হতে চাইলে এই ৭টি কাজ এড়িয়ে চলুনআবেগকে যারা ‘স্মার্টলি’ ব্যবহার করেন, তারা কর্মক্ষেত্র তো বটেই, এমনকি আমাদের এই অতি চেনা জগতকেও একটা উন্নত জায়গায় পরিণত করতে পারেন৷ ‘স্মার্ট’ হতে চাইলে এই ৭টি কাজ এড়িয়ে চলুন-

১. পূর্বধারণা
আবেগের দিক থেকে যারা স্মার্ট, অর্থাৎ আবেগকে যারা বুদ্ধিমানের মতো ব্যবহার করেন, তারা পূর্ব ধারণাকে গুরুত্ব দেন না৷ তাদের জানার কৌতূহল থাকে৷ ফলে অজানা বিষয়ে আগেভাগে মন্তব্য না করে তা জানার চেষ্টা করেন তারা৷ খোলামনে প্রশ্ন করেন এবং অন্যের প্রশ্ন শোনেন, ফলে নিজেকে আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে তুলে ধরতে পারেন৷

২. নেতিবাচকতা
মনস্তাত্ত্বিকরা দেখেছেন, আবেগের দিক থেকে যারা স্মার্ট তাদের ‘ইকিউ’, অর্থাৎ ‘ইমোশনাল কোশেন্ট’ বেশি থাকে৷ যাদের ইকিউ বেশি, তারা বেশির ভাগ সময়ই ইতিবাচক৷ নেতিবাচকতাকে তারা গুরুত্ব দেন না৷ তাদের সম্পর্কে অন্যের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিকেও তারা নিজের ওপর প্রভাব ফেলতে দেন না৷

৩. অন্যের আবেগের গুরুত্ব
যাদের ইকিউ বেশি, তারা কখনো অন্যের আবেগকে অগ্রাহ্য করেন না৷ সহকর্মী বা ক্রেতার অনুভূতি বোঝার সামর্থ কর্মক্ষেত্রে তাদের গুরুত্বপূর্ণ করে তোলে৷

৪. পরিবর্তন
উচ্চ ইকিউসম্পন্ন মানুষ পরিবর্তনকে ভয় না পেয়ে তাকে বরং স্বাগত জানান৷ জীবনে পরিবর্তনের গুরুত্ব তারা অনুধাবন করতে পারেন এবং পরিবর্তিত পরিস্থিতির সঙ্গে নিজেকে সহজেই মানিয়ে নেন৷

৫. নিজের ক্ষমতা এবং সীমাবদ্ধতা
উচ্চ ইকিউসম্পন্ন মানুষ নিজের ক্ষমতা ও সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে সবসময় সচেতন৷ তারা বুঝতে পারেন, সীমাবদ্ধতা কখনোই উন্নতির পথে অন্তরায় নয়৷ কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ সম্পর্কেও তাই তারা সচেতন৷ ফলে কোন কোন জায়গায় নিজের উন্নতি দরকার, তা নিয়ে ভেবে উন্নতির উপায়ও বের করে নেন তারা৷

৬. ভুল থেকে শিক্ষা নেয়া
নিজের ভুল থেকে শিক্ষা নেয়া খুবই দরকার৷ উচ্চ ইকিউসম্পন্ন মানুষ ভুল থেকে শিক্ষা নিতে পারেন৷ ফলে কর্মোদ্যম অটুট থাকে তাদের৷ কোনো কাজ সবসময়ই একেবারে নির্ভুলভাবে করা সম্ভব নয় এবং সব ক্ষেত্রে চূড়ান্ত দক্ষতা অর্জনও অসম্ভব – এটা জানেন বলেই হয়ত তারা ভুল থেকেও শেখেন৷

৭. কর্মজীবন ও ব্যক্তিজীবনে ভারসাম্য
উচ্চ ইকিউসম্পন্ন মানুষের কাজ আর ব্যক্তিগত জীবনের মধ্যে সীমারেখা টানায় দক্ষতা থাকে৷ তারা সারাক্ষণ শুধু কাজ নিয়ে থাকেন না৷ পেশাগত জীবন এবং ব্যক্তিগত জীবনে ভারসাম্য রক্ষার গুরুত্ব বোঝেন বলে কাজের বাইরেও তাঁদের আগ্রহের একটা জগত থাকে৷ স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খাওয়া ও পর্যাপ্ত ঘুমের অভ্যাস তাদের সুস্থ জীবনেরও নিশ্চয়তা দেয়৷

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *