জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, আসুন সবাই এক সঙ্গে বসি, কীভাবে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা যায়, সে ব্যাপারে আলোচনা করি।
জাতীয়

‘সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আসুন সবাই বসি’

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, আসুন সবাই এক সঙ্গে বসি, কীভাবে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা যায়, সে ব্যাপারে আলোচনা করি।সব দলের প্রতি আলোচনার আহবান জানিয়ে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, আসুন সবাই এক সঙ্গে বসি, কীভাবে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা যায়, সে ব্যাপারে আলোচনা করি।

আজ বিকালে জাতীয় পার্টির ২৯ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত মহাসমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে বেলা ৩ টার দিকে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর উদ্বোধন করেন এরশাদ। তিনি বলেন, আমরা শ্রম বাজার চালু করেছিলাম, এখন শ্রম বাজার বন্ধ, আমরা আবার ক্ষমতায় আসলে শ্রম বাজার চালু করবো। তিনি বলেন, আমরা ছিলাম সংবিধান স্বীকৃত বৈধ সরকার। আমি দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা শুরু করেছি। দেশের মানুষ এখন যে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতার কথা বলতে পারছে তার ভিত আমিই তৈরি করে দিয়েছি। এলজিইডি সৃষ্টি করে সকল কাঁচা রাস্তা পাকা করার ধারাবাহিকতা সৃষ্টি করেছি। এখন দেশে কোন কাঁচা রাস্তা নেই।

আমরা প্রাদেশিক সরকার চাই উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, আমরা প্রাদেশিক সরকার চাই, তোমরা কি তা চাও? প্রাদেশিক সরকার হলে হরতাল বন্ধ হবে, দুর্নীতি বন্ধ হবে।

সমাবেশে এরশাদ জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, আগামী নির্বাচনে আমরা ১৫১ আসন চাই, তোমকা কি চাও ? জনগণ তা চায়। সেজন্য নির্বাচন কমিশনকে সাজাতে হবে, উপজেলা পরিষদকে বাস্তবায়িত করতে হবে।

এ সময় সমাবেশে উপস্থিত তরুণদের লক্ষ্য করে এরশাদ বলেন, এদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে।

আজ শিক্ষাঙ্গণে শুধু রামদা আর লাশের রাজনীতি চলছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করেছিলাম, আসুন আমরা একসাথে বসি, আলোচনার মাধ্যমে কীভাবে শিক্ষাঙ্গণে শান্তি ফিরিয়ে আনা যায়, তা ভাবি।

এসময় তিনি রাজনৈতি দলসমূহের উদ্দেশ্যে বলেন, এদের (ছাত্রদের) হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবেন না।

২০১৫ সাল জাতীয় পার্টির বিজয়ের বছর উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, আমরা জাতীয় পার্টি দুঃসাহসীক যাত্রা শুরু করেছি। আমরা ভয় পাই না। আমাদের যাত্রা সফল হবে।

এসময় তিনি সমাবেশে উপস্থিত জনতাকে লক্ষ্য করে বলেন, তোমরা ক্ষমতায় যেতে চাও, হাত উঠাও। এ সময় জনতা হাত উঁচু করে জবাব দেয়।

এদিকে সমাবেশ মাঠে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাংসদ কাজী ফিরোজ রশীদ এর সঙ্গে অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য ফয়সাল চিশতীর তর্কাতর্কির ঘটনা ঘটেছে। ফিরোজ রশীদের সাংসদীয় এলাকা থেকে তার অনুসারীরা দুটি হাতি নিয়ে সমাবেশ স্থলে প্রবেশ করলে ফয়সাল চিশতীর সঙ্গে তার এ তর্কাতর্কি হয়। পরে পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তাদের শান্ত করেন। বক্তব্য রাখেন প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, জিএম কাদের, মশিউর রহমান রাঙা, মুজিবুল হক চুন্নু, ঢাকা দক্ষিণ জাতীয় পার্টির সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, প্রেসিডিয়াম সদস্য এম এ হান্নান, কাজী ফিরোজ রশীদ, জাপার সাবেক মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, সালমা ইসলাম, এসএম ফয়সল চিশতী, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, সুনীল শুভরায় প্রমুখ। সভায় সভাপতিত্ব করেন মহাসমাবেশ প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ও দলের মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *