সুশান্ত পাল ওএসডি, মানসিক চিকিৎসা করানোর নির্দেশ

সুশান্ত পাল ওএসডি, মানসিক চিকিৎসা করানোর নির্দেশ

সুশান্ত পাল ওএসডি, মানসিক চিকিৎসা করানোর নির্দেশঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে ফেসবুকে অশোভন মন্তব্য করায় কাস্টমসের সহকারী কমিশনার সুশান্ত পালকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বৃহস্পতিবার এক প্রজ্ঞাপনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। প্রজ্ঞাপনে সুশান্তকে মানসিক চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা করানোর নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় সুশান্ত পালের বিরুদ্ধে মামলাটি করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী মোতাক্কাবীর খান প্রবাস।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে আদিম বর্বরতা চলে, হল প্রশাসন ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ সব ব্যাপারে উদাসীন—নিজের ফেসবুক পেজে এমন সব কথা লিখে পোস্ট দিয়েছিলেন সুশান্ত পাল। এ নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলে পরে সুশান্ত পাল তার ফেসবুকে ক্ষমা চান।

তবে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, সুশান্ত পালের কুরুচিপূর্ণ, মিথ্যা, বানোয়াট ও নোংরা লেখায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী সবাই ক্ষুব্ধ হয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এ নিয়ে গত রোববার প্রতিবাদ ও মানববন্ধন করেন। মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার’ নামে ফেসবুকের গ্রুপেও (যেটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীদের যোগাযোগ প্ল্যাটফর্ম) এ নিয়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয়। মামলায় দ্রুত সুশান্তকে গ্রেফতার করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানানো হয়। মামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও ভূমিকা নিয়ে গুণিজনদের ১৫ পৃষ্ঠার একটি লেখাও সংযুক্ত করা হয়।

শুল্ক, গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান আজ রাত সাড়ে আটটার দিকে ফেসবুকে তাঁর স্ট্যাটাসে বলেন, সুশান্তকে ওএসডি করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁকে চাকরিচ্যুতও করা হতে পারে। তিনি বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের ঐতিহ্য ও গৌরব। তাঁর মন্তব্য এই প্রতিষ্ঠানকে অবমাননা করেছে। এনবিআর সুশাসনের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছে। বর্তমানে সুশান্তকে রংপুরে সংযুক্ত করা হয়েছে। আরও ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

মইনুল খান বলেন, ‘আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের একটি দলের সঙ্গে বৈঠকের পর এনবিআরকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী এ ধরনের মন্তব্য করা যায় না। আশা করি, সুশান্তের বিরুদ্ধে গৃহীত ব্যবস্থায় ছাত্রদের ক্ষোভ প্রশমিত হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সবার কাছে অত্যন্ত আবেগ ও সম্মানের জায়গা।’

৩০তম বিসিএসে প্রথম স্থান অধিকার করে শুল্ক ও আবগারি বিভাগে যোগ দেন সুশান্ত পাল। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন তিনি। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ করেন এই কাস্টমস কর্মকর্তা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *