সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিও আবেদন স্থগিত

রোববার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আবেদন গ্রহণ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়।

রোববার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আবেদন গ্রহণ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়।প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদন পাওয়া সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের আইপিও আবেদন গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।

আগামীকাল সোমবার থেকে এ আবেদন ও টাকা জমা নেওয়ার কথা থাকলেও অনিবার্য কারণবশত এ কোম্পানির আইপিও আবেদন স্থগিত করা হয়।

রোববার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আবেদন গ্রহণ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়। এ নির্দেশ দুই স্টক এক্সচেঞ্জের কাছেও পাঠানো হয়। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান বলেন, তথ্যবিবরণীতে নগদ তহবিল প্রবাহের (ক্যাশ ফ্লো) তথ্যগত গরমিল থাকায় সিমটেক্সের আইপিও স্থগিত করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওয়ালি-উল মারুফ মতিন বলেন, সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের আইপিও স্থগিত করার বিষয়ে বিএসইসি আজ লিখিতভাবে জানিয়েছে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।

সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) আশিষ কুমার সাহা বলেন, অনিবার্য কারণবশত আইপিও স্থগিত করার বিষয়টি বিএসইসি লিখিতভাবে জানিয়েছে। আর আবেদনের সময় পরবর্তীতে জানানো হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে স্থগিত করার কারণ সম্পর্কে কিছু জানেন না বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫৪৭তম সাধারণ সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

জানা যায়, ১০ টাকা প্রি‌মিয়ামে আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে টাকা উত্তোলন করবে সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ। এ লক্ষ্যে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ১০ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ২০ টাকায় শেয়ার ইস্যু করবে কোম্পানিটি। আর আইপিও’র মাধ্যমে ৩ কোটি সাধারণ শেয়ার ছেড়ে পুঁজিবাজার থেকে মোট ৬০ কোটি টাকা উত্তলন করবে কোম্পানিটি।

এ কোম্পানির মার্কেট লট নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০০টি শেয়ারে। অর্থাৎ প্রতিটি আইপিও আবেদনের বিপরীতে ৬ হাজার টাকা জমা দিতে হবে বিনিয়োগকারীদের।

উত্তোলিত টাকা থে‌কে মূলধনী বিনিয়োগ, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ, চলতি মূলধন অর্থায়ন এবং প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের খরচ খাতে ব্যয় করবে সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ।

৩০ জুন ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক বিরণী অনুযায়ী এ কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.৩৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৯.৬০ টাকা।

আইপিওতে আসার আগে এ পর্যন্ত কোম্পানি দুবার অর্থাৎ ২০১২ ও ২০১৩ সালে ১৫০ শতাংশ ও ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

এ কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড এবং ইমপেরিয়াল ক্যাপিটাল লিমিটেড।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *