সালাহ উদ্দিনকে ১৪ দিনের জেল হেফাজত

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন শিলংয়ের আদালত।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন শিলংয়ের আদালত।বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন শিলংয়ের আদালত।

বুধবার শিলং পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে।

মেঘালয়ের নর্থ ইস্টার্ন ইন্দিরা গান্ধী রিজিওনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ অ্যান্ড মেডিকেল সায়েন্সেস (নেগ্রিমস) থেকে সালাহ উদ্দিনকে মঙ্গলবার হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। এরপর বিকাল থেকে তিনি শিলং সদর পুলিশ স্টেশনে পুলিশি হেফাজতে ছিলেন।

১১ মে বিএনপির এই যুগ্ম মহাসচিবকে অনুপ্রবেশের দায়ে আটকের পর প্রথমবারের মতো তাকে পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়। এর আগে পুলিশি পাহারায় তিনি শিলংয়ের মানসিক হাসপাতাল, সিভিল হাসপাতাল ও নেগ্রিমসে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

বিনা পাসপোর্টে ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে শিলংয়ের পুলিশ সালাহ উদ্দিনের বিরুদ্ধে ‘ফরেনার্স অ্যাক্ট-৪৬’-এ মামলা করেছে। এর আগে ১১ মে শিলংয়ের গলফ-লিংক এলাকার লোকজন তাকে সেখানে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে তাকে আটক করে পাস্তুর পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। পরে তাকে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নেয়া হয় সেখানকার সিভিল হাসপাতালে। এরপর শিলং সদর পুলিশ থানা থেকে নেয়া হয় মানসিক হাসপাতাল মিমহানসে। এক দিন পর মিমহানস থেকে আবার তাকে পাঠানো হয় সিভিল হাসপাতালে। এরপর ২০ মে সিভিল হাসপাতাল থেকে সালাহ উদ্দিনকে স্থানান্তর করা হয় নেগ্রিমসে। সেখানে গত এক সপ্তাহ নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে রাখা হয় তাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *