৪৪ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন সাকিব-মুশফিক

৪৪ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন সাকিব-মুশফিক

৪৪ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন সাকিব-মুশফিকবাংলাদেশ ওয়েলিংটনে সিরিজের প্রথম টেস্টে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় দিনে সাকিব-মুশফিক জুটি দারুণ কিছু কীর্তি গড়ে দলকেই শুধু সুদৃঢ় অবস্থানে নিয়ে যাননি, গড়ে ফেললেন দারুণ কিছু রেকর্ডও।

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ৪৪ বছরের একটি পুরোনো রেকর্ড ভেঙে ফেলেছেন সাকিব-মুশফিক জুটি। এর আগে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে অতিথি দলগুলোর সর্বোচ্চ জুটি ছিল ৩৫০ রানের। ১৯৭৩ সালে সফরকারী পাকিস্তানের পক্ষে আসিফ ইকবাল ও মুশতাক মোহাম্মদ জুটি এই রেকর্ড গড়েছিলেন।

দীর্ঘদিন পরে হলেও দুই পাকিস্তানি তারকার সেই রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেলেন সাকিব-মুশফিক। তাঁরা গড়ছেন ৩৫৯ রানের জুটি। তা ছাড়া বাংলাদেশের যে কোনো উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটি এটি। তামিম ইকবাল-ইমরুল কায়েসের ৩১২ রানের জুটিকে পেছনে ফেলেছেন তাঁরা। টেস্ট ইতিহাসে পঞ্চম উইকেট জুটিতে তা চতুর্থ সর্বোচ্চ।

এদিনের ডাবল সেঞ্চুরিতে সাকিব তাঁর ব্যক্তিগত ঝুলিটাকে আরো সমৃদ্ধ করেছেন। টেস্ট ক্রিকেটে তিন হাজার রানের মাইলফলক ছুঁয়েছেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। তাঁর মোট সংগ্রহ এখন ৩১৪৬ রান।

সাকিব-মুশফিকের সাফল্যে বাংলাদেশ এই টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে বড় সংগ্রহ গড়েছে। সাত উইকেট হারিয়ে তারা করেছে ৫৪২ রান। অবশ্য এখনো ইনিংস ঘোষণা করেনি তারা।
বাংলাদেশের তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করলেন সাকিব। ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২১৭ রানের দৃষ্টিনন্দন ইনিংস খেলার সুবাদে সাকিব ছাড়িয়ে গেছেন তামিম ইকবালকে। এতদিন ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান ছিল তামিমের দখলে। ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে খুলনা টেস্টে ২০৬ রান করেছিলেন ড্যাশিং এই ওপেনার। তৃতীয় খেলোয়াড় হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি রয়েছে মুশফিকের। ২০১৩ সালে গলে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম বাংলাদেশী ক্রিকেটার হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি (২০০) করেন মুশফিক।

বিদেশের মাটিতে দ্বিতীয় বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি করলেন সাকিব। প্রথমটি করেছিলেন মুশফিক।

টেস্টে পঞ্চম উইকেটে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ রানের জুটি গড়েছেন সাকিব-মুশফিক (৩৫৯)। যে কোনো উইকেট জুটিতেও এটিই সর্বোচ্চ। পঞ্চম উইকেটে আগে সর্বোচ্চ রানের জুটি ছিল আশরাফুল-মুশফিকের দখলে (২৬৭)। অন্যদিকে পঞ্চম উইকেটে ওভারঅল হিসেবে সর্বোচ্চ রানের জুটির তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন বার্নেস-ব্রাডম্যান। ১৯৪৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪০৫ রান তুলেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার এই দুই ব্যাটসম্যান। এই তালিকায় সাকিব-মুশফিক জুটির অবস্থান চারে।

২০১২ সালে ভারতের বিপক্ষে সিডনি টেস্টে পাঁচ ও ছয় নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৫০ বা তার বেশি রানের ইনিংস খেলেছিলেন ক্লার্ক ও হাসি। ২০১৭তে এসে ১৫০ বা তার বেশি রানের ইনিংস খেললেন সাকিব ও মুশফিক।

বাংলাদেশের তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে তিন হাজার রানের ঘরে প্রবেশ করলেন সাকিব (৪৫ ম্যাচ ৩১৪৬ রান)। এই তালিকার শীর্ষে রয়েছেন তামিম (৪৫ ম্যাচ ৩৪০৫ রান)। তিনে রয়েছেন হাবিবুল বাশার (৫০ ম্যাচ ৩০২৬ রান)।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পঞ্চম উইকেট জুটিতে এতদিন সর্বোচ্চ রান ছিল পাকিস্তানের দখলে। ১৯৭৬ সালে লাহোর টেস্টে ২৮১ রানের জুটি গড়েছিলেন আসিফ ইকবাল ও জাভেদ মিয়াদাদ। ৪১ বছর পর আসিফ-মিয়াদাদের রেকর্ড ভেঙে দিলেন সাকিব-মুশফিক জুটি (৩৫৯)।

বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড দ্বিপক্ষীয় টেস্টে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ নিউজিল্যান্ডের ৫৫৩/৭ ডি:। দুইয়ে রয়েছে নিউজিল্যান্ডের তোলা ৫৪৫/৬ ডি:। বাংলাদেশের এটি সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ (৫৪২/৭)।

২০১৩ সালে গল টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৬৩৮ রান করেছিল বাংলাদেশ। যা টেস্টে টাইগারদের এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ। ওই টেস্ট ড্র হয়েছিল। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ এসেছিল ২০১২ সালে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৫৫৬ রান। ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে করা ৫৫৬/৬ রান, টেস্টে বাংলাদেশের তৃতীয় সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *