শান্তিপূর্ণ ব্রেকআপ করার ৫টি উপায়
সাময়িকী

শান্তিপূর্ণ ব্রেকআপ করার ৫টি উপায়

সম্পর্ক ছেড়ে বেরিয়ে আসা সহজ নয়। বিশেষত সেই সম্পর্ক যদি হয় দীর্ঘদিনের। তবু বিদায় জানাতেই হয়। মনোবিদরা বলেন, বিদায় যদি জানাতেই হয়, তাহলে সম্পর্ক হাসিমুখে শেষ করাই ভাল। তাতে মানসিক চাপ কম পড়ে।

শান্তিপূর্ণ ব্রেকআপ করার ৫টি উপায় জেনে নিন।

১. জীবনে কেউ অপরিহার্য নন
নিজেকে বোঝান জীবনে কেউ অপরিহার্য নন। কারো জন্যই জীবন থেমে থাকে না। সবকিছুরই একটা মেয়াদ থাকে। তারপরে সেটা শেষ হয়ে যায়। এমনকী সম্পর্কও।

২. অতীতকে মন থেকে ঝেড়ে ফেলা
নতুন করে শুরু করার মানসিক প্রস্তুতি নিন। মনে রাখবেন, যা ঘটে গিয়েছে, তার আর ফেরার নয়। অতীতকে মন থেকে ঝেড়ে ফেলাটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

৩. নতুন বন্ধু
নতুন বন্ধু পাতান। অতীতের স্মৃতি যে জায়গা বা ব্যাক্তির সঙ্গে রয়েছে, নিতান্ত অপরিহার্য না হলে তাদের এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।

৪. নিজেকে ভালবাসুন
সবচেয়ে আগে নিজেকে ভালবাসুন। এতে আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়বে।

৫. শান্তভাবে প্রতিবাদ
সম্পর্ক কখনই ঝগড়া দিয়ে শেষ করবেন না। কারণ বিবাদ বাড়ে। প্রাক্তন যদি কিছু কটূ কথাও বলেন, তাহলে শান্তভাবে তার প্রতিবাদ করুন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

২ thoughts on “শান্তিপূর্ণ ব্রেকআপ করার ৫টি উপায়”

  1. ভালোলাগা থেকে ভালোবাসা। ধীরে ধীরে গভীর সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া। ভালোবাসার মহূর্তগুলো হয় অনেক আনন্দের। মাঝে মাঝে মনে হয় সে যেন আমার চোখের সামনে থেকে একটি পলকও না সরে। কিন্তু এটাই কি বাস্তবতা?

    ভেবে দেখুন-সময়কে উপভোগ করছেন ভালো কথা। কিন্তু দুঃসময়ের সাথে মোকাবিলা করার ক্ষমতা আপনার আছে কিনা সেটাই মূল বিষয়। প্রেমের নিবিড় সম্পর্ক তৈরি করে ইতিহাস গড়েছেন লাইলি-মজনু, শিরি-ফরহাদ। কিন্তু বর্তমানের প্রেম যেন শুধুই ভোগবিলাস। 

    তাই যারা জেনে-না জেনে গভীর সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন কিংবা যারা ব্রেকআপের কষ্ট থেকে পরিত্রাণের উপায় খুজছেন আজকে তাদের জন্যই আলোচনা করব-

    রিলেশনের সময় করণীয় এবং ব্রেকআপের কষ্ট থেকে পরিত্রাণের উপায়;

    এসব নিয়ে বিস্তারিত বলব, আর বিষয়গুলো সংগ্রহ করেছি-
    (i) Howard Bronson and Mike Riley এর বই – “How to heal a broken heart in 30 days”.
    (ii) Louise L.Hay an David KessLer এর বই “You can heal your heart”.
    (iii) Google মামার বিভিন্ন রেফারেন্স ওয়েব সাইট ও ইউটিউব থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *