Russian-ambassador-to-Turkey-assassinated-in-Ankara

তুরস্কে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতকে গুলি করে হত্যা

তুরস্কে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আন্দ্রে কারলভকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। রাজধানী আঙ্কারার একটি আর্ট গ্যালারিতে তাকে গুলি করা হয়।

গুলিবিদ্ধ কারলভকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়।

বিবিসি থেকে জানা যায়, তুরস্কে নিয়োজিত রুশ রাষ্ট্রদূত কারলভ একটি চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেওয়ার সময় পেছন থেকে তাঁকে গুলি করা হয়।

একটি আর্ট সেন্টারে একটি প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছিলেন কারলভ। তিনি ওই প্রদর্শনীতে বক্তৃতাদানকালে এক লোক ‘আল্লাহু আকবার’ বলে চিৎকার দিয়ে উঠে। এর পরপরই কারলভের প্রতি কমপক্ষে ৮টি গুলি চালায় ওই লোক। অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত বার্তাসংস্থা এপির একজন চিত্রগ্রাহক এ বর্ণনা দিয়েছেন।

এই সময় দুর্বৃত্তদের গুলিতে আহত হন আরো তিন ব্যক্তি। ২০১৩ সাল থেকে আন্দ্রেই কারলভ তুরস্কে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন।

হামলাকারী চিত্র প্রদর্শনীর কয়েকটি ছবি ভাঙচুরও করে। রিয়া নভোস্তি জানিয়েছে, ঘটনাস্থলেই কারলভের মৃত্যু হয়। তুরস্কের এনটিভি জানিয়েছে, পুলিশের গুলিতে বন্দুকধারী নিহত হয়েছে। তুরস্কের কর্মকর্তারা জানান, নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ভেতরে ঢুকে ওই আততায়ী। পাশে থাকা কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, কারলভকে গুলি করার সময় ‘আলেপ্পো’ বলেও চিৎকার দেন ওই ব্যক্তি। তবে এ দাবি তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত করা যায়নি।

রাশিয়ান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ বিষয়ে আঙ্কারার সঙ্গে যোগাযোগ চলছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ ও নিরাপত্তা বাহিনীর প্রধানদের সঙ্গে জরুরী বৈঠক ডেকেছেন প্রেসিডেন্ট পুতিন।
গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহে পূর্ব আলেপ্পোয় বেসামরিক মানুষকে সরিয়ে নিতে যে চুক্তি সম্পাদিত হয়, তার আলোচনায় ছিলেন কারলভও। এপ্রিলে তুরস্ক সরকার মস্কোর সঙ্গে সম্পর্ক নতুনভাবে এগিয়ে নেয়।

এ ঘটনা এমন সময় ঘটলো যখন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলুর কয়েকদিনের মধ্যে রাশিয়া সফরে যাওয়ার কথা। সেখানে রাশিয়া ও ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের কথা রয়েছে তার। ২০১৫ সালে রাশিয়ার একটি বিমান তুরস্ক ভূপাতিত করলে দু’ দেশের সম্পর্কে চরম অবনতি ঘটে। তবে পরে এ সম্পর্কে দারুন অগ্রগতি দেখা গেছে।

এদিকে ওয়াশিংটনে নিযুক্ত তুর্কি দূতাবাসের প্রেস অ্যাটাশে ফাতিহ ওকে টুইটারে লিখেছেন, রাষ্ট্রদূত কারলভের ওপর বুলেট শুধু তার উদ্দেশ্যেই ছিল না। এটির লক্ষ্য তুর্কি-রাশিয়ান সম্পর্কও।

কারলভ একজন পেশাদার কূটনীতিক। এর আগে উত্তর কোরিয়ায় রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ছিলেন তিনি।

তুরস্কে গত কয়েক বছর ধরেই সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটছে। সরকার এ জন্য ‘কুর্দিশ জঙ্গি’দের দায়ী করছে। এসব হামলায় আইএস-এর সম্পৃক্ততার অভিযোগও রয়েছে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *