যেসব ক্যান্সারের প্রবণতা মহিলাদেরই বেশি

যেসব ক্যান্সারের প্রবণতা মহিলাদেরই বেশি

ক্যান্সার কয়েকটি মহিলাদেরই বেশি হয়। আবার মহিলাদের যে ক্যান্সার হয়, তার কিছু হয় জেনেটিক কারণে, কিছু হয় খাদ্যাভাস ও জীবনযাপনের ফলে। চলুন জেনে নিই, যেসব ক্যান্সারের প্রবণতা মহিলাদেরই বেশি হয়।

জরায়ুতে ক্যান্সার
এস্ট্রোজেন হরমোন নিঃসরণে তারতম্য জরায়ু বা ইউটেরাইন ক্যান্সারের অন্যতম কারণ। এটিকে এন্ডোমেট্রিক্যাল ক্যান্সারও বলা হয়। নির্দিষ্ট বয়েসে পৌঁছে প্রত্যেক মহিলারই এই ক্যান্সার হতে পারে।

কী কারণে প্রবণতা বাড়ে
১। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ঋতুস্রাব।
২। ভারী ওজন।
৩। চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়ার প্রবণতা।
৪। জরায়ুতে টিউমার।
৫। পলিসিস্টিক ওভারির লক্ষণ। যেমন- অনিয়মিত ঋতুস্রাব, চুল ঝরা, মুখে ও শরীরের অন্যান্য অংশে অবাঞ্ছিত রোম, অ্যাকনে, বারংবার রক্তপাত, ডিপ্রেশন ও মুড সুইং, শ্বাস কষ্ট।

স্তন ক্যান্সার
মহিলারা স্তন ক্যান্সারের কারণে সবচেয়ে বেশি ভোগেন। পরিবারে আগে কারোর স্তন ক্যান্সার হলে, প্রবণতা বাড়তে পারে।

অন্যান্য যে কারণে প্রবণতা বাড়ে
১। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ঋতুস্রাব।
২। ওবিসিটি বা ভারী ওজন।
৩। চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়ার প্রবণতা।
৪। নিয়মিত মদ্যপান।

ফুসফুস ও ব্রঙ্কাস ক্যান্সার
বিভিন্ন সমীক্ষা বলছে, পুরুষদের চেয়ে মহিলাদেরই ফুসফুসে ক্যান্সার হয় বেশি। ধূমপান করেন যে সব মহিলা, তাঁদের সম্ভাবনা দ্বিগুণ।

কী কারণে প্রবণতা বাড়ে
১। জেনেটিক কারণে বা পরিবারে আগে কারোর ফুসফুসে ক্যান্সার হওয়ার ঘটনা থাকলে সম্ভাবনা বাড়তে পারে।

২। প্যাসিভ স্মোকিংয়ের কারণে হতে পারে ফুসফুসে ক্যান্সার। অর্থাৎ, সামনে যদি কেউ ধূমপান করেন, সেই ধোয়া শরীরে ঢুকলে হতে পারে ক্যান্সার।

৩। আর্সেনিকযুক্ত পানি ব্যবহার করলে ফুসফুসে ক্যান্সার হওয়ার প্রবণতা বাড়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *