যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা বলেছেন, “৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।”
জাতীয়

‘গত নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান অপরিবর্তিত’

যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা বলেছেন, “৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।”বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা বলেছেন, “যুক্তরাষ্ট্র বিশেষ কোনো দলকে ক্ষমতায় আনার চেষ্টা করে না। এটা বাংলাদেশের জনগণ নির্ধারণ করবে। তবে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।”

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় বারিধারার আমেরিকান সেন্টারে বিদায়ী সংবাদ সম্মেলনে মজীনা এসব কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত বলেন, “কোনো মানদণ্ডেই বাংলাদেশ এখন আর গরিব দেশ নয়। ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্ক এখন সবচেয়ে ভালো সময় পার করছে।”

মজীনা বলেন, “গার্মেন্ট সেক্টরে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনা সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের জন্য।”

তিনি জানান, বাংলাদেশের সমুদ্রসীমার নিরাপত্তা রক্ষায় নৌবাহিনী ও কোস্ট গার্ডকে সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

মজীনা বলেন, “বাংলাদেশের মানুষ অত্যন্ত আন্তরিক। এ দেশটি বিস্ময়করভাবে শিশু মৃত্যুর হার কমিয়ে এনেছে। আমি নিশ্চিত যে, বাংলাদেশ সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাও অর্জন করতে পারবে। যে দেশকে স্বাধীনতা যুদ্ধের পর তলাবিহীন ঝুড়ি বলা হতো, সে দেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। কৃষিতে মহাবিপ্লব ঘটিয়েছে। বাংলাদেশের গর্ব করার মতো অনেক কিছু রয়েছে।”

২০১১ সালের ২৪ নভেম্বর মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে ঢাকায় দায়িত্বে আসেন ড্যান ডব্লিউ মজিনা। এর আগেও ১৯৯৮ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশে মার্কিন দূতাবাসের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক কনস্যুলার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তবে রাষ্ট্রদূত হিসেবে বাংলাদেশে আসার আগেই যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওয়ার কলেজে অধ্যাপনা করতেন মজিনা। মাত্র এক বছর সেখানে ছিলেন। বাংলাদেশ থেকে ফিরে তিনি আবারো সেই অধ্যাপনায় যোগ দিচ্ছেন। ঢাকা মার্কিন দূতাবাস এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের জ্যেষ্ঠ এই সদস্য ২০০৭ সালে প্রথমবারের মতো পূর্ণাঙ্গ রাষ্ট্রদূত হিসেবে ২০১০ সাল পর্যন্ত আফ্রিকার দেশ অ্যাঙ্গোলাতে দায়িত্ব পালন করেন। সেখান থেকে ফিরে অধ্যাপনায় যোগ দেন এবং এক বছরের মাথায় তাকে আবারো বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে পাঠানো হয়।

বাংলাদেশ ছাড়াও মজিনা দক্ষিণ এশিয়ার ভারত, পাকিস্তান এবং আফ্রিকার দেশ জাম্বিয়াতে মার্কিন দূতাবাসের ঊর্ধ্বতন কমকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *