কিংবদন্তী গীতিকবি মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের গল্প

কিংবদন্তী গীতিকবি মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের গল্প

591
0
SHARE

মোহাম্মদ রফিকুজ্জামান আমাদের বাংলা গানের ভাণ্ডারের এক অতি পরিচিত এক নাম । যারা বাংলা আধুনিক ও চলচ্চিত্রের গানের খবরাখবর রাখেন তাঁদের কাছে নামটি খুবই পরিচিত।ফজলে এলাহী পাপ্পু
মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান আমাদের বাংলা গানের ভাণ্ডারের এক অতি পরিচিত এক নাম । যারা বাংলা আধুনিক ও চলচ্চিত্রের গানের খবরাখবর রাখেন তাঁদের কাছে রফিকউজ্জামান নামটি খুবই পরিচিত । বাংলা গানে যে ক’জন মেধাবী গীতিকার আছেন তাঁদের মধ্য রফিকউজ্জামান অন্যতম। আধুনিক,চলচ্চিত্র, দেশাত্মবোধক সব মৌলিক গানে তাঁর অবাধ বিচরণ । অথচ এই গুণী মানুষটা রয়ে গেছেন নতুন প্রজন্মের শ্রোতাদের কাছে অচেনা । নতুন প্রজন্মের শ্রোতারা ভারতের জাভেদ আখতারকে চিনে অথচ আমাদের দেশেই যে জীবন্ত এক কিংবদন্তীতুল্য মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান নামের এক অসাধারন গীতিকবি আছেন তা এরা জানে না । জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’র গত কয়েক দশকধরে প্রচারিত বেশিরভাগ গানের গীতিকার মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান ।

১৯৪৩ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহ জেলার ফুরসুন্দি লক্ষ্মীপুরে জন্মগ্রহণ করেন মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান । পৈতৃক নিবাস যশোর শহরের খড়কী এলাকায় । পিতা মরহুম শাহাদাত আলী ও মাতার নাম সাজেদা খাতুন। স্কুলজীবন থেকেই গান ও কবিতা লিখা শুরু করেন । স্কুল জীবনের শেষ দিকে প্রথম কবিতা ছাপা হয় পত্রিকায়। স্কুলের গায়ক বন্ধুরা তাঁর লিখা গান সুর করে গাইতো । যশোর জিলা স্কুল ও যশোর এম এম কলেজে অধ্যায়ন শেষে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক এবং পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়েছেন ১৯৬৭ সালে।

কলেজ জীবনে ঢাকার পত্র পত্রিকায় কবিতা প্রকাশিত হয় । ১৯৬৮ সাল থেকে বেতারে প্রযোজক হিসেবে চাকরী শুরু করেন তিনি । বাংলাদেশ বেতারে তাঁর লিখা প্রথম গান হলো ‘মুগ্ধ আমার এ চোখ যখন, মুগ্ধ আমার এ মন / তখন বাতাস আনলো বয়ে তোমার নিমন্ত্রণ’। ১৯৭৩ সালে চলচ্চিত্রে গান লিখা শুরু করেন এবং ১৯৭৫ সাল থেকে চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য লিখা শুরু করেন । তাঁর লিখা চিত্রনাট্য একাধিক চলচ্চিত্র জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পায় । তাঁর লিখা চলচ্চিত্রের উল্লেখযোগ্য চিত্রনাট্যগুলো হলো –সৎ ভাই, কাজললতা, দেবদাস, ঘর সংসার, বিরাজ বউ, শুভদা, সহযাত্রী, ছেলেকার, মরনের পরে,জন্মদাতা, চরম আঘাত, না বলো না সহ আরও অনেক । চলচ্চিত্রের গানে মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের অসাধারন অবদান রাখেন । তাঁর লিখা বহু গান আমাদের চলচ্চিত্রের গানের ভাণ্ডারকে করেছে সমৃদ্ধ ।

শ্রেষ্ঠ গীতিকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন একাধিকবার । ১৯৮৪ সালে ‘চন্দ্রনাথ’ ১৯৮৬ সালে ‘শুভদা’ চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ গীতিকার ও ২০০৮ সালে ‘মেঘের কোলে রোদ ‘ ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ কাহিনীকারের জাতীয় চলচ্চিত্রের পুরস্কার লাভ করেন । তাঁর লিখা গান গেয়ে অনেকেই জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন । বাংলাদেশের গানের বহু রথী মহারথী মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের লিখা গানে কণ্ঠ দিয়ে নিজেদের জনপ্রিয়তা বাড়িয়েছেন অথচ এই মানুষটি রয়ে গেছে আমাদের অজানা। তাঁর লিখা গানে কণ্ঠ দিয়েছেন রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়াসমিন, অ্যান্ড্রু কিশোর, সৈয়দ আব্দুল হাদি, মাহমুদুন নবী, আব্দুল জব্বার, সুবির নন্দী, সামিনা চৌধুরী সহ অনেকে ।

১৯৯৩ সালে পরিচালক পদে থাকাবস্থায় বাংলাদেশ বেতার থেকে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণ করেন । তিনি বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের সিইও ও অনুষ্ঠান প্রধান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন । মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের মতো একজন মানুষ আজ জীবিতঅবস্থায় আমাদের শিল্প ও সংস্কৃতির বাহিরে রয়েছেন যা ভাবলে আমাদের দীনতা ও হীনমানসিকতার পরিচয় পাওয়া যায় ।

মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের লিখা উল্লেখযোগ্য গানগুলো হলো –

১.ভালোবাসা যত বড় জীবন তত বড় নয়
২. দুঃখ আমার বাসর রাতের পালঙ্ক
৩.কিছু কিছু মানুষের জীবনে ভালোবাসা চাওয়াটাই ভুল
৪.সেই রেললাইনের ধারে মেঠোপথটার পাড়ে দাঁড়িয়ে
৫.মনটা সবাই দিতে পারে আমি তোমায় প্রাণটা দিতে চাই
৬.আমার মন পাখিটা যায়রে উড়ে যায় ধান শালিকের গায়
৭.আমাদের দেশটা স্বপ্নপুরী সাথী মোদের ফুলপরী
৮.তোমার হাতপাখার বাতাসে প্রাণ জুড়িয়ে আসে
৯.রিটার্ণ টিকিট হাতে লইয়া আইসাছি এই দুনিয়ায়
১০.আমি বধূ সেজে থাকবো তুমি পালকি নিয়ে এসো
১২.পদ্ম পাতার পানি নয় দিন যাপনের গ্লানি নয়
১৩.আর যেন ভুল না হয় একটি ভুলে কাঁদে দুটি হৃদয়
১৪.তুমি এমনই জাল পেতেছো সংসারে
১৫.এই রাত ডাকে ওই চাঁদ ডাকে আজ তোমায় আমায়
১৬.এই হৃদয়ে এতযে কথার কাঁপন মুখে কেন বলা যায়না
১৭.এত সুখ সইবো কেমন করে
১৮.ঘরটা যদি সুখের হয় তারে জানি স্বর্গ কয়
১৯.সবাইরে সব দান করিয়া আমারে মা করলো দান
২০.আমার নেই রাজত্ব নেইরে প্রজা
২১.সুখে আমার বুক ভেসে যায় ভালোবাসার কান্নায়
২২.তুমি আমার মনের মানুষ মনেরই ভিতর
২৩.বন্ধু হতে চেয়ে তোমার শত্রু বলে গণ্য হলাম
২৪.আমার দুই নয়নের জন্ম শুধু তোমায় দেখবো বলে
২৫.নদী চায় চলতে তারা চায় জ্বলতে
২৬.যে আমার হৃদয় করলো চুরি
২৭.যে সাগর দেখে রিক্ত দুচোখ মুগ্ধ তোমার মন
২৮.আমাকে দেখার সেই চোখ তোমার কইগো
২৯.আজ বড় সুখে দুটি চোখে জল এসে যায়
৩০.কি যাদু করেছো বলোনা ঘরে আর থাকা যে হলোনা

মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের লিখা কিছু গানের লিঙ্ক –

আমার নেই রাজত্ব নেই রে প্রজা – https://www.youtube.com/watch?v=qfr_XiO14vM
এতো সুখ সইবো কেমন করে- https://www.youtube.com/watch?v=SUk_2bq8DO0
তুমি এমনই জাল পেতেছো – https://www.youtube.com/watch?v=3teKHnl8yV0
পৃথিবী তো দুদিনেরই বাসা – https://www.youtube.com/watch?v=l37LbiM-iF8
এই রাত ডাকে ঐ চাঁদ ডাকে – https://www.youtube.com/watch?v=dnET29z8mCw

Comments

comments