মুস্তাফিজের হায়দরাবাদ আইপিএল চ্যাম্পিয়ন
খেলা

মুস্তাফিজের হায়দরাবাদ আইপিএল চ্যাম্পিয়ন

মুস্তাফিজের হায়দরাবাদ আইপিএল চ্যাম্পিয়নরয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে হারিয়ে নবম আসরের শিরোপা জিতে নিয়েছে মুস্তাফিজদের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ওয়ার্নার, কাটিং, মুস্তাফিজুর, যুবরাজ, ভুবনেশ্বরদের সৌজন্যে প্রথমবার আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ পেল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ৮ রানে জিতে এবারই প্রথমবার ট্রফির দেখা পেল সানরাইজার্স।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন সানরাইজার্স অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। ৩৮ বলে ৬৯ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন তিনি। তাঁর ওপেনিং পার্টনার শিখর ধাওয়ান করেন ২৫ বলে ২৮ রান। মোজেস এনরিকস ৫ বল খেলে ৪ রান করে আউট হয়ে যান। ২৩ বলে ৩৮ রানের ঝোড়ো ইনিংস যুবরাজ সিংয়ের। বয়স হয়েছে। সেই দিন আর নেই। তা হলেও যুবরাজ সিং যে বড় ম্যাচের প্লেয়ার, সেটা আরও একবার প্রমাণ করে গেলেন। এরপর একের পর এক উইকেট পড়তে থাকে সানরাইজার্সের। দীপক হুডা গোটা আইপিএলেই ব্যর্থ।

এদিনও করলেন ৬ বল খেলে ৩ রান। ওঝা রান আউট হলেন ৪ বলে ৭ রান করে। আগের ম্যাচে অন্যতম নায়ক বিপুল শর্মা অবশ্য এদিন রান পেলেন না।

শেষদিকে সানরাইজার্সের ইনিংস টানলেন বেন কাটিং। তিনি অপরাজিত থাকেন ১৫ বলে ৩৯ রান করে। বেন কাটিং ছাড়া ২০০ রানের উপর করা কিছুতেই সম্ভব ছিল না। সব মিলিয়ে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ২০৮ রান তোলে ডেভিড ওয়ার্নারের দল। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়ে ৩ উইকেট নিয়েছেন জর্ডন। দুটো উইকেট অরবিন্দের। এবং একটি উইকেট পেয়েছেন যজুবেন্দ্র চাহাল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত করেন ক্রিস গেইল এবং বিরাট কোহলি। দুজনে প্রথম উইকেটের জুটিতে ১০.৩ ওভারে তুলে ফেলেন ১১৪ রান! ক্রিস গেইল আউট হন ৩৮ বলে ৭৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলে। কম যান না বিরাটও। গেইল আউট হওয়ার পর হাত খোলেন তিনিও।৩৫ বলে ৫৪ রানের ইনিংস খেলে আউট হন তিনি।আগের ম্যাচের নায়ক এবি ডিভিলিয়ার্স অবশ্য এদিন রান পাননি। ৬ বলে ৫ রান করে আউট হয়ে যান তিনি। ৯ বলে ১১ করে ডাগ আউটে ফেরেন রাহুল। শেন ওয়াটসনের অবদানও তাই। ৯ বলে ১১ রান। ৭ বলে ৯ করে আউট হয়ে যান স্টুয়ার্ট বিনি।

শেষ ওভারে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের জেতার জন্য দরকার ছিল ১৮ রান! ক্রিজে ছিলেন সচিন বেবি এবং জর্ডন। কিন্তু তাঁদের পক্ষে এই রান তোলা সম্ভব ছিল না। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ২০০ তোলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। এই নিয়ে তিনবার আইপিএল ফাইনালে হারলো ব্যাঙ্গালোর।

আইপিএলের উল্লেখযোগ্য

১. এবার আইপিএলে পার্পেল ক্যাপ পেলেন ভূবনেশ্বর কুমার। ১৭ ম্যাচে ২৩ উইকেট পেলেন তিনি।

২. এবার আইপিএলে অরেঞ্জ ক্যাপ পেলেন বিরাট কোহলি। ১৬ ম্যাচে ৯৭৩ রান করলেন তিনি।ডেভিড ওয়ার্নার করেন ৮৪৮ রান!

৩. এবারের আইপিএলের সেরা ফিল্ডার হলেন এবি ডিভিলিয়ার্স।

সেরা উদীয়মান খেলোয়াড় মুস্তাফিজ

ইনজুরি কাটিয়ে ফাইনাল ম্যাচে খেলেন মুস্তাফিজ। এদিন ৪ ওভার বল করে ৩৭ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন তিনি।

তিনি ম্যাচসেরা কিংবা সিরিজসেরা না হলেও আইপিএলের নবম আসরের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন মুস্তাফিজ। পুরস্কার হিসেবে তিনি পেয়েছেন ১০ লাখ রূপি।

আইপিএলের এই আসরে ১৫ ম্যাচে মাঠে নেমে ১৭ উইকেট নিয়েছেন কাটার মাস্টার। ১৬ ম্যাচে তিনি ৬১ ওভার বল করেছেন। ১ মেডেনসহ ৪২১ রান দিয়ে নিয়েছেন ১৭ উইকেট।

আইপিএলের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে সেরা উদীয়মান খেলোয়াড় নির্বাচনে দর্শকদের ভোটের ৮৩.২ শতাংশ পেয়েছেন মুস্তাফিজ।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *