মির্জা ফখরুল গ্রেফতার

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেল ৪টার পর জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে বেরুনোর পথেই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে তিনি এক সংক্ষিপ্ত প্রেস ব্রিফিং করেন। এ সময় তিনি বলেন, ব্যক্তিগত নিরাপত্তার কারণে আমি প্রেসক্লাবে ছিলাম।

প্রেস ব্রিফিং শেষ করে মঙ্গলবার বিকেল ৪টা ১২ মিনিটে তার গাড়িতে (ঢাকা মেট্রো-ঘ ১১৬৭-১৯) উঠে বসেন। এ সময় প্রজন্ম লীগের নেতাকর্মীরা ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাংবাদিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে স্লোগান দেয়। অন্যদিকে বিএনপিপন্থী সাংবাদিকরা ফখরুলের গাড়ির চারদিকে ঘিরে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করে। এমনকি দু’পক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তিও হয়।

এরপর পুলিশ সদস্যরা ফখরুলের গাড়ির দরজা খুলে ভেতরে প্রবেশ করেন এবং গাড়িসহ ফখরুলকে গ্রেফতার করে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যান।

ফখরুল বের হওয়ার সময় তার সঙ্গে ছিলেন জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদ, আব্দুল হাই সিকদার, জাহাঙ্গীর আলম প্রধানসহ বিএনপিপন্থী পেশাজীবী নেতারা।

গতকাল সোমবার দুপুরের পর সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সমাবেশে বক্তব্য দেন ফখরুল। এ সময় প্রেস ক্লাবের চারিদিকে পুলিশ অবস্থান নেয়। এ অবস্থায় বক্তব্য শেষে তিনি প্রেসক্লাবের ভেতরেই অবস্থান নেন।

ফখরুলের এ সময় প্রেস ক্লাবের বাইরে অবস্থান করা মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের কর্মীরা ফটক টপকে ভেতরে ঢুকে বিএনপি কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় রণক্ষেত্রে পরিণত হয় প্রেস ক্লাব।

এ হামলার বিষয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে দুই পক্ষ।

দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া যখন গুলশানে তার নিজ কার্যালয়ে অবরুদ্ধ অবস্থায় আছেন, ঠিক সে সময়ই গ্রেফতার হলেন ফখরুল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *