মার্কিন দূতাবাসের সাবেক কর্মকর্তাসহ দুজন খুন
জাতীয়

মার্কিন দূতাবাসের সাবেক কর্মকর্তাসহ দুজন খুন

মার্কিন দূতাবাসের সাবেক কর্মকর্তাসহ দুজন খুনরাজধানীর কলাবাগানে বাসায় ঢুকে ঢাকাস্থ মার্কিন মিশনের কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নানসহ দুজনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত অন্যজন মাহবুব রাব্বী তনয়, জুলহাজের বন্ধু।

সমকামীদের অধিকার বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘রূপবান’ সম্পাদনা করতেন জুলহাজ মান্নান। তিনি সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনির খালাতো ভাই।

৩৫, উত্তর ধানমন্ডির বাড়িতে সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, দুর্বৃত্তরা পার্সেল দেয়ার নাম করে ওই বাসায় ঢুকে কুপিয়ে জুলহাজ ও তন্ময়কে হত্যা করে। পরে পালিয়ে যাওয়ার সময় ওই বাসার নিরাপত্তাকর্মীকেও কুপিয়ে আহত করে।

নিহত জুলহাজ মার্কিন দাতা সংস্থা ইউএসএআইডিতে কর্মরত। এর আগে তিনি দীর্ঘদিন বাংলাদেশে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনার প্রটোকল কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে কলাবাগান থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হাবিবুর রহমান জানান, নিহত দুজনের বয়স আনুমানিক ৩৫ বছর। তবে কী কারণে এ হত্যাকাণ্ড তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

তিনি জানান, সোমবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে কয়েকজন যুবক পার্সেল দেয়ার কথা বলে ওই বাড়িতে ঢোকে। কিছু বুঝে উঠার আগেই যুবকেরা জুলহাজ ও মাহবুব তন্ময়কে চাপাতি দিয়ে মাথাসহ সারা শরীরে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। ওই সময় বাসায় ছিলেন জুলহাজের বৃদ্ধ মা ও গৃহকর্মী। ঘটনার আকস্মিকতায় তাঁরা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন। ওই যুবকেরা দুজনকে কুপিয়ে দ্রুত বাসা থেকে বেরিয়ে যান। চিৎকার চেঁচামেচি শুনে আশপাশের লোকজন ওই বাড়ির দিকে ছুটে যান। এর আগেই যুবকেরা দ্রুত বাড়ি থেকে বেরিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। তখন স্থানীয় লোকজন তাদের ‘ছিনতাইকারী’, ‘ধর ধর’ বলে চিৎকার করে ধাওয়া করেন। তখন ওই যুবকেরা আগ্নেয়াস্ত্র উঁচিয়ে লোকজনদের হুমকি দিতে দিতে পালাতে থাকে। একপর্যায়ে কয়েকটি গুলি ছুড়ে তারা পালিয়ে যায়।

দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হয়েছেন ওই বাড়ির নিরাপত্তাকর্মী পারভেজ। ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন পারভেজ সাংবাদিকদের বলেন, বিকেলে বাড়ির সামনে চার-পাঁচজন যুবক আসে। তাদের প্রত্যেকের পরনে একই রঙের পোশাক ছিল। তারা জুলহাজের নামে একটি পার্সেল এসেছে বলে তাঁকে জানান। তখন তিনি ওই যুবকদের নিচে থাকতে বলে পার্সেলের ব্যাপারে কথা বলতে দোতলায় জুলহাজের বাসায় যান। কলিং বেল দেওয়ার পর জুলহাজ দরজা খোলেন।

পার্সেলের কথা জিজ্ঞেস করলে জুলহাজ কোনো পার্সেল আসার কথা নয় বলে জানান। জুলহাজ দরজা বন্ধ করার আগেই তিন থেকে চারজন যুবক সিঁড়ি দিয়ে দ্রুত ওপরে উঠে পড়েন। এ সময় তিনি (পারভেজ) যুবকদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। তখন যুবকদের একজন চাপাতি বের করে তাঁকে আঘাত করেন। এরপর আর কোনো কিছুই তাঁর মনে নেই।

মর্মাহত মার্কিন রাষ্ট্রদূত

রাজধানীর কলাবাগানে বাসায় ঢুকে মার্কিন দূতাবাসের সাবেক কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধুর হত্যার ঘটনায় গভীর শোক ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট।

সোমবার রাতে এক বার্তায় বার্নিকাট বলেন, “জুলহাজ মান্নানসহ আরেকজনের হত্যার ঘটনায় আমি শোকে বিহ্বল। জুলহাজ আমাদের কাছে সহকর্মীর তুলনায় বেশি কিছু ছিল। তার সঙ্গে কাজ করতে পেরে মার্কিন দূতাবাসের সবাই ভাগ্যবান। তিনি একজন অতিপ্রিয় বন্ধু ছিলেন।”

মার্শা বার্নিকাট বলেন, “জুলহাজ, নিহত অন্যজন ও আহত ব্যক্তিদের প্রতি আমাদের প্রার্থনা রইল। আমরা এই ধরনের নির্মম সহিংসতার নিন্দা জানাচ্ছি। এবং হত্যাকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেফতারের জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি দৃঢ় আহ্বান জানাচ্ছি।”

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *