যে ১০ ধরণের পুরুষদের মহিলারা এড়িয়ে চলেন
সাময়িকী

যে ১০ ধরণের পুরুষদের মহিলারা এড়িয়ে চলেন

মহিলারা সবসময় কয়েক ধরণের পুরুষদের থেকে দুরত্ব বজায় চলতে পছন্দ করেন। জেনে নিন, যে ১০ ধরণের পুরুষদের মহিলারা এড়িয়ে চলেন।

১. ধাক্কা খাওয়া প্রেমিক
প্রেমে প্রবলভাবে আহত হয়েছে, এমন পুরুষের কাছ থেকে বিরত থাকাই বাঞ্ছনীয়। কারণ, প্রেমে ধাক্কা খাওয়ার পর সাধারণত পুরুষরা ভেঙে পড়েন। তখন তাঁদের শক্তপোক্ত খুঁটির প্রয়োজন হয়। আর সেই খুঁটি যদি কোনও মহিলা হন তাহলে তো কথাই নেই। ভাঙা মন খুব তাড়াতাড়ি জোড়া লাগে। তবে দুঃখের সময় এঁদের পাশে দাঁড়িয়ে কখনওই ভাববেন না যে এঁরা আপনার প্রেমে পড়েছেন। নিজেদের মন শক্ত হওয়ার পর এঁরা কিন্তু খুঁটিকে দুর্বল করতে পিছপা হন না।

২. শূন্য পকেটের প্রেমিক
আজকালকার আধুনিকারা যথেষ্ট ইন্ডিপেনডেন্ট। কিন্তু তা বলে প্রেমিকের শূন্য পকেটের ভালোবাসা বেশিদিন চলে না। যদি দেখেন আপনার প্রেমিক টাকাপয়সার বিষয়টা ক্রমশই এড়িয়ে যাচ্ছেন, সেই প্রেমিকের প্রেমে সাড়া না দেওয়াই ভালো।

৩. প্রাক্তন প্রেমিকার সাধক
ডেটে গেছে আপনার সঙ্গে, কিন্তু বেশিরভাগ কথা হচ্ছে প্রাক্তন প্রেমিকাকে নিয়ে। এমনটা হলে কিন্তু সেখানে আর সময় নষ্ট না করাই ভালো। প্রাক্তন প্রেমিকার কথা বলে আপনার কাছে স্বচ্ছ ভাবমূর্তি তুলে ধরতে চাইছে এটা কিন্তু ভুলেও ভাববেন না। আসলে কিন্তু সে তার প্রাক্তন প্রেমিকাকে ভুলতেই পারেনি।

৪. গাছেরও কুড়োব আবার তলারও খাব
বেশিরভাগ ছেলের মধ্যে এই প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। অনেকেই নিজের প্রাক্তন প্রেমিকাকে বেস্টফ্রেন্ডের আসনে বসাতে ভালোবাসে। আসলে তারা একাকিত্বকে বড় ভয় পায়। তাই সবসময় হাতে একটা করে অপশন রেখে চলে।

৫. প্রথম দেখাতেই প্রেম
প্রথম দেখাতেই প্রেম অর্থাৎ “Love At First Sight” অনেক সময়তেই সঠিক হয় না। একবার ভেবে দেখুন তো প্রথমবার দেখেই আপনি কীভাবে বুঝবেন যে মানুষটি আপনার জন্য সঠিক? অনেকসময় আমরা আবেগের বশে রিল লাইফের ছবিগুলোকে বাস্তবের রূপ দিতে গিয়ে প্রবলভাবে হোঁচট খাই। তাই আবেগের হাওয়ায় না ভেসে বাস্তবের কঠিন রাস্তা দিয়ে হেঁটে সাথীকে বিচার করা ভালো।

৬. দাম দিয়ে যায় কেনা
দামী গাড়ি, বড় বাড়ি, এলাহি লাইফস্টাইল – এইসব বড়ই ঠুনকো। বাঁচতে গেলে টাকার দরকার পড়লেও টাকা দিয়ে অন্ততপক্ষে প্রেমকে টেক্কা না দেওয়াই ভালো। যদি আপনার প্রেমিক টাকা দিয়ে আপনার মন কাড়তে চায়, তাহলে তাকে বলুন দাম দিয়ে যায় না কেনা।

৭. মায়ের আঁচলতলে
আশপাশে না থাকাই ভালো। যেসব ছেলেরা মায়ের কথায় ওঠবোস করে, তাদের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কোনও ক্ষমতাই নেই। এসব ছেলেদের থেকে দূরে থাকাই ভালো। না হলে পরবর্তীকালে খারাপ পরিস্থিতিতে পড়তে হতে পারে।

৮. বাবার হোটেলে
বাবার হোটেলে থেকে বাবার টাকায় বাগাড়ম্বরে অনেক ছেলেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। কিন্তু ওভাবে প্রেম না করাই ভালো। কারণ একটা বয়সের পর প্রেমটা নিজের পয়সাতেই করা দরকার। না হলে নিজের কাছেই নিজেকে ছোটো হতে হয়। কিন্তু সেই আত্মসম্মানবোধ যে পুরুষের নেই, তাঁকে জীবনসঙ্গী না করাই ভালো।

৯. আমিই সর্বেসর্বা
এই ধরনের মনোভাব খুবই খারাপ। এই ধরনের পুরুষ মহিলাদের ডমিনেট করতেই সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে। মনে করে, তারা যেটা বলে সেটাই একমাত্র সঠিক। বাকি সব ভুল। যদি নিজেকে প্রভুর সেবিকা বানাতে না চান, সেই সম্পর্ককে টাটা বলে সামনে এগিয়ে যান।

১০. জীবনের অপর নাম সমস্যা
এদের জীবনে শুধুই সমস্যা। এমন মানুষের পাল্লায় পড়লে কিন্তু খুব সাবধান। যে কোনওদিনে জীবনের সমস্যার তালিকায় আপনার নামও যোগ হতে পারে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *