জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বড় জয় পেয়েছে ভারত

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২৮৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে ছয় উইকেটের বড় জয় পেয়েছে ভারত। প্রথমে টপ অর্ডারকে হারিয়ে চাপে পড়লেও পরে ধোনি-রায়নার ব্যাটে সহজ জয় তুলে নেয়।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২৮৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে ছয় উইকেটের বড় জয় পেয়েছে ভারত। প্রথমে টপ অর্ডারকে হারিয়ে চাপে পড়লেও পরে ধোনি-রায়নার ব্যাটে সহজ জয় তুলে নেয়।জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২৮৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে ছয় উইকেটের বড় জয় পেয়েছে ভারত। প্রথমে টপ অর্ডারকে হারিয়ে চাপে পড়লেও পরে ধোনি-রায়নার ব্যাটে সহজ জয় তুলে নেয় দলটি।

এ জয়ে টানা ৬ ম্যাচ জিতে গ্রুপ (বি) চ্যাম্পিয়ন হয়েই কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলো বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

জয়ের পথে প্রবল প্রতাপে নিজের শতরান পূর্ণ করেন রায়না। এরপর অর্ধশতক তুলে নেন অধিনায়ক ধোনিও।

রায়না-ধোনি জুটির কাছ থেকে আসে ১৯৬ রান। রায়না ১১০ রানে আর ধোনি ৮৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

২৮৮ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দলীয় ১০০ রানের আগেই সাজঘরে ফিরে যান ভারতের টপঅর্ডারের চার ব্যাটসম্যান।  একে একে মাঠ ছাড়েন রোহিত শর্মা, শিখর ধাওয়ান, অজিঙ্কা রাহানে ও বিরাট কোহলি।

টপ অর্ডারকে হারিয়ে এ সময় চাপে পড়ে ভারত। তবে ধোনি-রায়নার ব্যাটিংয়ে চাপ সামলে জয়ের পথে ফিরে তারা।

এ জুটির ব্যাটিং নৈপুণ্যের সামনে আর কোনো প্রতিরোধ গড়তে পারেননি জিম্বাবুয়ে বোলাররা।

এর আগে রাহানে (১৯), রোহিত শর্মা (১৬), ধাওয়ান (৪) ও বিরাট কোহলি ৩৮ রান করে আউট হন।

প্রথমে ব্যাটিং করে জয়ের জন্য ভারতকে ২৮৮ রানের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দেয় জিম্বাবুয়ে। ৩৩ রানে তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়লেও অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেলরের সেঞ্চুরিতে সম্মানজনক স্কোর গড়ে জিম্বাবুয়ে।

অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে বাংলাদেশ সময় সকাল ৭টায় শুরু হওয়া এই খেলায় টসে জিতে ভারতীয় অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন।

ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই চাপে পড়ে জিম্বাবুয়ে। ৩৩ রানের মধ্যেই তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে তারা। পরে উইলিয়ামসকে সঙ্গে নিয়ে সেই চাপ কেটে তোলেন টেলর। কিন্তু দলীয় ১২৬ রানের মাথায় উইলিয়ামসকে (৫০) হারিয়ে আবারো চাপে পড়ে তারা।

পরে দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন অধিনায়ক টেলর। উইকেটের চতুর্দিকে ব্যাট চালিয়ে তুলে নেন নিজের অষ্টম সেঞ্চুরি। ১১০ বল মোকাবেলা করে ১৩৮ রান করেন তিনি। তার ইনিংসে ছিল ১৫টি চার ও পাঁচটি ছক্কা।

পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের ছোট ছোট কল্যাণে শেষ পর্যন্ত ২৮৭ রানে অলআউট হয় তারা। টেলর এবং উইলিয়ামস ছাড়া জিম্বাবুয়ের পক্ষে সিকান্দার রাজা (২৮) এবং আরভিন (২৭) রান করেন।

ভারতের পক্ষে মোহাম্মদ সামি, মোহিত শর্মা ও উমেশ যাদব তিনটি করে উইকেট নেন।

এ ম্যাচ জিতলে টানা ছয় ম্যাচ অপরাজিত থেকে গ্রুপ পর্ব শেষ করবে টিম ইন্ডিয়া। আর আইসিসির সহযোগী সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে এক ম্যাচে জয় পাওয়া জিম্বাবুয়ে শেষ ম্যাচে ভালো খেলে সান্ত্বনা নিয়ে দেশে ফিরতে চাইবে।

পুল ‘এ’ থেকে দুর্দান্তভাবে লড়ছে ভারত, আর শক্তিশালী দলগুলোর পাশাপাশি আয়ারল্যান্ডের মতো সহযোগী দলের কাছেও হেরে ফিরতি ফ্লাইট ধরার অপেক্ষায় জিম্বাবুইয়ানরা।

ভারত-জিম্বাবুয়ে ওয়ানডেতে এর আগে ৫৬ বার মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যে ৪৪ ম্যাচে জিতেছে ভারত। আর ১০ জয় রয়েছে জিম্বাবুয়ের। বাকি দু’টি ম্যাচ টাই হয়েছে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

জিম্বাবুয়ে : ২৮৭/১০, ওভার ৪৮.৫ (টেলর ১৩৮, উইলিয়ামস ৫০, সিকান্দার ২৮, আরভিন ২৭; উমেশ ৩/৪৩, সামি ৩/৪৮, মোহিত ৩/৪৮)

ভারত : ২৮৮/৪, ওভার ৪৮.৪ (রায়না ১১০*, ধোনি ৮৫*, বিরাট ৩৮; পানিয়াঙ্গারা ২/৫৩)

ফল : ভারত ৬ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা : সুরেশ রায়না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *