ব্লগার অনন্য আজাদের দেশত্যাগের পরিকল্পনা

প্রয়াত অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদের পুত্র তরুণ ব্লগার অনন্য আজাদকে মৃত্যুভীতি তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। তার আশঙ্কা পরবর্তী টার্গেট হতে পারেন তিনিও।

প্রয়াত অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদের পুত্র তরুণ ব্লগার অনন্য আজাদকে মৃত্যুভীতি তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। তার আশঙ্কা পরবর্তী টার্গেট হতে পারেন তিনিও।প্রয়াত অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদের পুত্র  তরুণ ব্লগার অনন্য আজাদকে মৃত্যুভীতি তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। তার আশঙ্কা পরবর্তী টার্গেট হতে পারেন তিনিও।

দুই মাসের কম সময়ের মধ্যে ঢাকার রাস্তায়  দ্বিতীয় এক ব্লগারের খুনের পর তার কাছে এখন স্পষ্ট যে তিনি আর নিরাপদ নন

‘যে কোনো সময় তারা (জঙ্গিরা) আমাকে  কিংবা আমার সমমনা বন্ধুদের আঘাত করতে পারে,’ বলছিলেন ২৫ বছর বয়সী আজাদ।

ধর্মীয় রাজনীতি এবং ইসলামী মৌলবাদ নিয়ে সমালোচনামূলক লেখা লিখেছেন তিনি।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে একের পর এক হুমকির পর তিনি একটি সংবাদপত্রে তার লেখালেখি এবং ব্লগ লেখা বন্ধ করে দিয়েছেন। তবে ফেসবুকে তিনি সমালোচনামূলক লেখা অব্যাহত রেখেছেন।

বর্তমানে বাসার বাইরে বের হওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন অনন্য আজাদ। এখন তিনি দেশত্যাগের পরিকল্পনা করছেন।

‘ধর্মের নামে হত্যায় তারা দ্বিধা করে না। উগ্রবাদীদের সহজ টার্গেট আমি,’ বলছিলেন আজাদ।

বাংলাদেশে সেক্যুলার ও ইসলামন্থীদের মধ্যে রক্তাক্ত বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে।

অনেক ক্ষেত্রেই এই বিভাজন স্পষ্ট। ব্লগারদের দাবি সরকার যেন ধর্মীয় রাজনীতি নিষিদ্ধ করে। আর ইসলামপন্থীদের দাবি ব্লাসফেমি আইন যেখানে ইসলামের অবমাননার জন্য কঠোর শাস্তির বিধান থাকবে।

১৬ কোটি মানুষে ঠাসা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ইতিহাস ক্ষমতার দ্বন্দ্বের যা রাজপথের সহিংসতায় রূপ নেয়। অনেকের আশঙ্কা, ধর্ম এই পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটাতে পারে।

গত ফেব্রয়ারিতে ঢাকায় স্ত্রীকে নিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় খুন হন আমেরিকা প্রবাসী বিশিষ্ট ব্লগার অভিজিৎ রায়। এ সময় তার স্ত্রীও গুরুতর আহত হন। আনসার বাংলা সেভেন নামের একটি উগ্র মুসলিম সংগঠন এই ঘটনার দায় স্বীকার করেছে।

এরপর গত সোমবার খুন হন ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান বাবু (২৭)।  তিনি ছিলেন অপরিচিত ব্লগার। তবে তার ফেসবুকে এখনো  দখল করে আছে ফরাসি ব্যাঙ্গ ম্যাগাজিন শার্লি এবদোতে মহানবী সা. এর কার্টুন। তিনি পবিত্র কোরআনের বাণী নিয়ে প্রকাশ্যেই প্রশ্ন তুলতেন।

তবে ইসলামপন্থী রাজনৈতিক দলগুলো এসব হতাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা নাকচ করে দিয়েছে।

অনন্য আজাদ বলছিলেন, ‘আমার সুরক্ষার জন্য যে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তাতে আমি ভরসা করতে পারছি না। আমরা হতাশ। আমার বন্ধুরা এমন একটি উদার বাংলাদেশ দেখতে পাচ্ছেন না যেখানে মুক্তচিন্তাকে উৎসাহিত এবং সুরক্ষা দেয়া হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *