ইরাওয়ান মূলত হিন্দু দেবতা ব্রহ্মার মন্দির। বেশ জনপ্রিয় এ মন্দিরটিতে প্রতিদিন হিন্দুদের পাশাপাশি কয়েক হাজার বৌদ্ধধর্মাবলম্বীও পূজা দিতে আসে।
আন্তর্জাতিক

ব্যাংককে মন্দিরে বোমা হামলায় নিহত ২৭

ইরাওয়ান মূলত হিন্দু দেবতা ব্রহ্মার মন্দির। বেশ জনপ্রিয় এ মন্দিরটিতে প্রতিদিন হিন্দুদের পাশাপাশি কয়েক হাজার বৌদ্ধধর্মাবলম্বীও পূজা দিতে আসে।থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে একটি মন্দিরে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে কমপক্ষে ২৭ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও ১০০ জন। হতাহতদের অধিকাংশই বিদেশি পর্যটক।

সোমবার চিদলোম জেলার ইরাওয়ান মন্দিরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এখনও কেউ এ হামলার দায় স্বীকার করেনি।

ইরাওয়ান মূলত হিন্দু দেবতা ব্রহ্মার মন্দির। বেশ জনপ্রিয় এ মন্দিরটিতে প্রতিদিন হিন্দুদের পাশাপাশি কয়েক হাজার বৌদ্ধধর্মাবলম্বীও পূজা দিতে আসে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলি জানিয়েছে, সন্ধ্যা ৬ টা ৫৫ মিনিটে মন্দিরের বাইরে রাখা একটি মোটরসাইকেলে বোমাটি বিস্ফোরিত হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা কয়েকটি ছবিতে গাড়ির চূর্ণবিচুর্ণ গ্লাস ও ধ্বংসাবশেষ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

তাৎক্ষনিকভাবে নিহতের সংখ্যা ২৭ জন বলে জানা গেছে। আহত হয়েছে ১০০ জন। তবে সরকারি কোন সূত্র এখনও মৃতের সংখ্যা নিশ্চিত করেনি।

বিস্ফোরণের পরপর স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটায় ঘটনাস্থলে পুলিশের গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্স ছুটে যেতে দেখা গেছে। জাতীয় পুলিশের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল প্রায়ুত থাভোরনসিরি বলেন, ‘এটি বোমা আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি। তবে এটি কোন ধরণের বোমা তা এ মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। আমরা এটি খতিয়ে দেখছি।’

এদিকে ওই মন্দিরের ভেতর থেকে পুলিশ আরেকটি বোমা উদ্ধার করেছে। বোমাটি নিস্ক্রিয় করা হয়েছে। এছাড়া তৃতীয় আরেকটি বোমা একটি ট্রেনে রয়েছে বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলি জানিয়েছে। ওই বোমাটি নিস্ক্রিয়ের কাজ চলছে।

এখনও কেউ এ বোমা হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী প্রায়ুত ওংসুয়ান দাবি করেছেন, হামলাকারীরা এমন একটি মন্দিরকে বেছে নিয়েছে যেটি পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। থাইল্যান্ডের পর্যটন খাত ও অর্থনীতি ধ্বংসের জন্যই এ হামলা চালানো হয়েছে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *