বিপিএলের তৃতীয় আসরে ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজি প্রতিষ্ঠান
খেলা

বিপিএলের তৃতীয় আসরে ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজি প্রতিষ্ঠান

বিপিএলের তৃতীয় আসরে ছয় ফ্র্যাঞ্চাইজি প্রতিষ্ঠানবাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসরের ফ্র্যাঞ্চাইজি পেল ছয় প্রতিষ্ঠান। টুর্নামেন্ট শুরু হবে আগামী ২৪ নভেম্বর। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে ২২ নভেম্বর। বুধবার মিরপুরে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সংবাদে সম্মেলনে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আফজালুর রহমান সিনহা জানিয়েছেন, “ছয়টা ফ্র্যাঞ্চাইজি আমরা নির্বাচন করেছি। ঢাকা বেক্সিমকো গ্রুপ, চট্টগ্রাম ডিবিএল গ্রুপ, বরিশাল এক্সিওম টেকনোলজিস, সিলেট আলিফ গ্রুপ, রংপুর আই স্পোর্টস ও কুমিল্লা রয়্যাল স্পোর্টিং লিমিটেড।”

তিনি আরও বলেন, “উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে ২২ নভেম্বর। প্রথম ম্যাচ দিবারাত্রির হবে, ২৪ নভেম্বর। বিপিএলের টাইটেল এবং ইন- স্টেডিয়া স্বত্বের জন্য সর্বোচ্চ দরদাতা ছিল বিআরবি কেবলস ইন্ডাস্ট্রিজ। ওদেরকেই আমরা প্রাথমিকভাবে নির্বাচন করেছি।”

এবার বিপিএলের খেলা হতে পারে দুটি ভেন্যুতে। যদিও এখন পর্যন্ত তিন ভেন্যুতে খেলা আয়োজনের চিন্তা করছে বিসিবি। সম্ভাব্য ভেন্যু হতে পারে ঢাকা ও চট্টগ্রাম।

ফ্র্যাঞ্চাইজি দেয়ার প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ডা. আই এইচ মল্লিক বলেন, “দুটি ছিল পুরোনো, তিনটি ছিল নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি। নতুনগুলো সবাই দল উল্লেখ করে আমাদের কাছে আবেদন করেছিল। যেমন বেক্সিমকো ঢাকা, ডিবিএল চট্টগ্রাম, এক্মিওম চেয়েছিল বরিশাল। আমরা তখন এক্সিওমকে মৌখিকভাবে কথা দেই বরিশালের ব্যাপারে। কারণ তখনও পর্যন্ত আলিফ গ্রুপ আমাদের টাকা শোধ করেনি। এরপর যখন আলিফ গ্রুপ টাকা শোধ করল, তারা বরিশালই চেয়েছিল। কিন্তু আমরা তাদের বলেছিল বরিশাল সম্ভব নয়। তারা তখন সিলেট বেছে নিয়েছে।”

কুমিল্লাকে দল দেয়া প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, “কুমিল্লা নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে, বিভাগ নয়। এখন সরকারের সিদ্ধান্ত হচ্ছে, ময়মনসিংহ বিভাগ হচ্ছে, কুমিল্লা হতে পারে। এজন্য আমরা আর ডিভিশনে যাচ্ছি না, সিটি কর্পোরেশন বিবেচনা করছি। ভবিষ্যতে এটি ১০ দলের হবে। সিটি কর্পোরেশন ২০টি হলেও দল আমাদের ১০টিই থাকবে। এখন আমরা চার বছরের জন্য দল দিচ্ছি। চার বছরের পর আলোচনার মাধ্যমে রিনিউ হবে।”

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, তৃতীয় আসরে আইসিসির নয় বিসিবির দুর্নীতি দমন কমিশনই কাজ করবে। ফিক্সিংসহ যাবতীয় বিষয় বিসিবির আকসুই দেখভাল করবে।

মিরপুরে এদিন আরও উপস্থিত ছিলেন বিসিবির পরিচালক জালাল ইউনুস, শেখ সোহেল, লোকমান ভূইয়া, খালেদ মাহমুদ সুজন ও বিসিবির সি্ইও নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *