বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের ১১ দফা দাবি পেশ

পুঁজিবাজারে চলমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) স্মারকলিপি দাখিল করেছে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ।

পুঁজিবাজারে চলমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) স্মারকলিপি দাখিল করেছে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ।পুঁজিবাজারে চলমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) স্মারকলিপি দাখিল করেছে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ। ওই স্মারকলিপিতে বাজারে স্থিতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে ১১ দফা দাবি বাস্তবায়নের আহ্বান জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় বিএসইসির কার্যালয়ে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক কাজী আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে স্মারকলিপিটি দাখিল করা হয়েছে। স্মারকলিপিটি গ্রহণ করেছেন বিএসইসির চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত সহকারী মো. আলম। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক কাজী আব্দুর রাজ্জাক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ঐক্য পরিষদ ১১ দফা দাবি গুলো হল-

১. প্রণোদনা প্যাকেজ পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করা।

২. দ্রুত বাইব্যাক আইন পাশ করা। এক্ষেত্রে ইস্যু মূল্য বা নিট সম্পদ মূল্য (এনএভি) এবং ৫ শতাংশ মূল্যের মধ্যে যেটা বেশি সেই মূল্যে কোম্পানিগুলোকে শেয়ার বাইব্যাক করতে হবে।

৩. স্বল্প মূলধনী কোম্পানিগুলোর গণহারে আইপিও অনুমোদন বন্ধ রাখা।

৪. শূন্য লভ্যাংশ দেওয়া কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া।

৫. বাজার স্থিতিশীল না হওয়া পর্যন্ত বুক বিল্ডিং পদ্ধতি স্থগিত রাখা।

৬. বাংলাদেশ ব্যাংকের অযাচিত হস্তক্ষেপ বন্ধ করা।

৭. বিভিন্ন দেশে মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউসের শাখা খোলা।

৮. অডিট ফার্মগুলোকে জবাবদিহিতার আওতায় আনা।

৯. ২০১১ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত বিনিয়োগকারীদের মার্জিন লোনের সুদ মওকুফ করা।

১০. ইব্রাহীম খালেদের তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী শেয়ারবাজার লুন্ঠনকারীদের আইনের আওতায় আনা।

১১. সর্বশেষ ঐক্য পরিষদের নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *