বসতি গড়তে বিনামূল্যে জমি দিচ্ছে কানাডা

বসতি গড়তে বিনামূল্যে জমি দিচ্ছে কানাডা

868
2
SHARE

শহরে বসতি গড়তে ইচ্ছুকদের বিনামূল্যে জমি বিতরণের সিদ্ধান্ত নিল কানাডার সেইন্ট লুইস ডি ব্ল্যান্ডফোর্ড নগর কর্তৃপক্ষ।বাড়াতে হবে শহরের জনসংখ্যা। অথচ বহু সাধাসাধিতেও কেউ বাস করতে আগ্রহী হন না এখানে। এবার শহরে বসতি গড়তে ইচ্ছুকদের বিনামূল্যে জমি বিতরণের সিদ্ধান্ত নিল কানাডার সেইন্ট লুইস ডি ব্ল্যান্ডফোর্ড নগর কর্তৃপক্ষ।

ফরাসি অধ্যুষিত ক্যেবেক সিটি থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে ঘণ্টা খানেকের মতো দূরত্বে খুদে শহর সেইন্ট লুইস ডি ব্ল্যান্ডফোর্ডের বর্তমান জনসংখ্যা প্রায় ৯০০। জনসংখ্যা বাড়ানোর লক্ষ্যে ২০১৩ সালে কয়েকশো একর জমি কিনে ৪০টি প্লটে ভাগ করেছে প্রশাসন। বাড়ি বানিয়ে বাস করতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের সেই জমি বিনামূল্যে বিতরণ করার প্রস্তাব দিয়েছে সরকার।

শর্ত অনুসারে, প্রথমে ১০০০ ডলারের বিনিময়ে জমি বায়না করতে হবে। তার পর এক বছরের মধ্যে ১,২৫,০০০ ডলার খরচ করে বাড়ি বানিয়ে ফেলতে হবে। নির্মাণ শেষ হলে জমির দাম ফেরত দেবে পুরসভা। মেয়র জাইলস মার্শন্ড জানিয়েছেন, ‘আমাদের মতো ছোট শহরের প্রতি নবীন প্রজন্ম উত্সা্হ হারিয়ে ফেলছে। দলে দলে মানুষ এখান থেকে বড় শহরগুলিতে পাকাপাকি বসবাস শুরু করছেন। তাই বাড়ি করতে উৎসাহিত করতে নয়া পদক্ষেপ করা হয়েছে।’

তবে সেইন্ট লুইস ডি ব্ল্যান্ডফোর্ড একা নয়। কয়েক বছর আগে এমনই জনমোহিনী প্রকল্প তৈরি করে কানাডার আরেক ছোট শহর রেস্টন। সেই সময় ইচ্ছুক বাসিন্দাদের মাত্র ১০ ডলারের বিনিময়ে জমি বিক্রি করা হয়। জানা গিয়েছে, ২৪টি জমির প্লটের মধ্যে ১৯টি বিক্রি হয়ে যাওয়ার পর এই উদ্যোগ পড়শি পাইপস্টোন ও সিনক্লেয়ার শহরেও প্রয়োগ করে নগর উন্নয়ন দপ্তর। গত ২০ বছরে রেস্টন শহরের ওই সমস্ত জমিতে মোট ২০টি নতুন বাড়ি তৈরি হয়েছে।

পাইপস্টোন রুরাল মিউনিসিপ্যালিটির অর্থনৈতিক উন্নয়ন ব্যবস্থাপক তানিস চামার্সের মতে, ‘ছোট শহরদের মহানগরীগুলির সঙ্গে পাল্লা দিতে গেলে নাগরিকদের বাড়তি সুবিধা দিতেই হবে।’

চামার্স ও মার্শন্ড দুজনেই মনে করেন, ভবিষ্যতে এতে লাভবান হবে পুর কর্তৃপক্ষ। নয়া বসতি গড়লে কর আদায়ের মাধ্যমে কোষাগার যেমন স্ফীত হবে তেমনই পুর পরিষেবার পিছনে খরচ কমবে। বাসিন্দাদের ন্যূনতম দামে জমি দেওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করেছে সাস্কাচুয়ান এলাকার বেশ কয়েকটি ছোট শহর। আবার সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি জমি বিতরণের টোপ দিয়েছে কিংস পয়েন্ট এন এল নগর কর্তৃপক্ষ।

পুরসভার এমন বিজ্ঞাপনে সাড়া দিয়ে ১০ বছর পর সেইন্ট লুইস ডি ব্ল্যান্ডফোর্ড শহরে ফিরে এসেছেন ক্রিসচিয়ান মার্টিন। প্রায় বিনামূল্যে ৫১০ বর্গ মিটার জমি পেয়েছেন তিনি। বিশাল বাড়ি তৈরির পর জমিতে একটি ঝিলও খুঁড়ে ফেলেছেন মার্টিন। জানিয়েছেন, ‘বড় শহরে শুধু জমি কিনতে গেলেই গোটা সম্পত্তির দাম দিতে হতো।’

স্বাভাবিক ভাবেই প্রকল্পের এহেন সাফল্যে উচ্ছ্বসিত মেয়র জাইলস মার্শন্ড।

Comments

comments