নেইমারের চার গোলে বিধ্বস্ত জাপান

নেইমারের চার গোলে বিধ্বস্ত জাপান

221
0
SHARE

সিঙ্গাপুরে ৪-০ গোলে ব্রাজিলের কাছে বিধ্বস্ত হলো এশিয়ার সেরা জাপান। ব্রাজিলের হয়ে একাই চার গোল করলেন অধিনায়ক নেইমার জুনিয়র। তিনদিন আগে বেইজিংয়ের বার্ডস নেস্টে মেসির আর্জেন্টিনাকে ২-০ গোলে হারানোর ফলে যে আত্মবিশ্বাস তৈরী হয়েছে সেলেসাওদের মধ্যে, সেটারই প্রতিফলন ঘটলো সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে জাপানের বিপক্ষে।সিঙ্গাপুরে ৪-০ গোলে ব্রাজিলের কাছে বিধ্বস্ত হলো এশিয়ার সেরা জাপান। ব্রাজিলের হয়ে একাই চার গোল করলেন অধিনায়ক নেইমার জুনিয়র। তিনদিন আগে বেইজিংয়ের বার্ডস নেস্টে মেসির আর্জেন্টিনাকে ২-০ গোলে হারানোর ফলে যে আত্মবিশ্বাস তৈরী হয়েছে সেলেসাওদের মধ্যে, সেটারই প্রতিফলন ঘটলো সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে জাপানের বিপক্ষে।

৬০ মিনিটে একবার মিস হলেও, পরে শুধু হ্যাটট্রিকই নয়, জাপানের জালে একাই চারবার বল জড়ালেন ব্রাজিল অধিনায়ক নেইমার। ৮১ মিনিটে বদলি হিসেবে মাঠে নামা কাকার পাস থেকে হেড করে চতুর্থ গোল করেন তিনি।

এর আগে ৭৭ মিনিটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন ব্রাজিলের বার্সা তারকা। কওতিনহোর ২০ গজ দুর থেকে নেওয়া শট জাপান গোলরক্ষক কাওয়াসিমা ফিরিয়ে দিলে সেই ফিরতি বলেই শট করে ব্লু সামুরাইদের জালে জড়িয়ে দেন নেইমার।

৬০ মিনিটের মাথায় হ্যাটট্রিক মিস করেছিলেন তিনি।  ব্রাজিল অধিনায়কের দুর্দান্ত এক শট জাপানের জালে জড়ালেও রেফারি অফসাইডের অজুহাতে সেটা বাতিল করে দেন। রিবেইরোর কাছ থেকে বল পেয়ে বক্সের মধ্যে দু’জনকে কাটিয়ে দৃষ্টিনন্দন শটে বলটি জড়িয়েছিলেন তিনি। এই শটেও যদি গোল হতো তাহলে বিরল একটি রেকর্ডই হয়তো হয়ে যেতো ব্রাজিল অধিনায়কের।

দ্বিতীয় গোলটিও এসেছিল বার্সা তারকার পা থেকে। দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরু হতে না হতেই (৪৯ মিনিটে) মাঝ মাঠ থেকে কওতিনহোর লম্বা পাসে ডি বক্সের অনেক আগে বল পেয়ে যান নেইমার। এ সময় তার সামনে গোলরক্ষক ছাড়া আর কেউ ছিল না। অনেকটুকু সামনে এগিয়ে গিয়ে গোলরক্ষক কাওয়াসিমাকে পারাস্ত করে জাপানের জালে বল জড়িয়ে দেন তিনি।

১৮ মিনিটেও ব্রাজিলের প্রথম গোলটিও করেন নেইমার। সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে দলের তারকা স্ট্রাইকার নেইমার ডি জুনিয়রের গোলেই এগিয়ে যায় ৫ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ১-০ ব্যবধান রেখেই প্রথমার্ধ শেষ করে ব্রাজিল।

মাঝ মাঠ থেকে দিয়েগো তারদেলির বাড়ানো পাসেই ডি বক্সের মধ্যে ফাঁকায় বল পেয়ে যান নেইমার এবং জাপানের গোলরক্ষক কাওয়াসিমাকে কাটিয়ে বাম পাশ থেবে কোনাকুনি শটে ব্লু  সামুরাইদের জালে বল জড়ান নেইমার।

এরপর দু’দলই চেষ্টা করেছে একে অপরের জালে বল জড়াতে। কিন্তু দু’দলেরই সব চেষ্টা এসে ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয় ডি বক্সের সামনে এসে। খেলার পুরোটা সময়ই আধিপত্য ছিল ব্রাজিলের। প্রথমার্ধের চেয়ে দ্বিতীয়ার্ধে বেশি। একের পর এক আক্রমণে জাপানের রক্ষণভাগ ব্যাস্ত করে রাখেন ব্রাজিল ফুটবলাররা।

Comments

comments