সেনা মোতায়েনসহ বিএনপির ১৪ দফা প্রস্তাব

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি এবং ভোটগ্রহণের দিন সেনা মোতায়েনসহ নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) ১৪ দফা প্রস্তাব দিয়েছে বিএনপি।

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি এবং ভোটগ্রহণের দিন সেনা মোতায়েনসহ নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) ১৪ দফা প্রস্তাব দিয়েছে বিএনপি।সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি এবং ভোটগ্রহণের দিন সেনা মোতায়েনসহ নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) ১৪ দফা প্রস্তাব দিয়েছে বিএনপি।

বুধবার নির্বাচন কমিশনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সঙ্গে বৈঠক করে এ সব প্রস্তাব তুলে ধরেন বিএনপি প্রতিনিধিদল।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রি. জেনারেল (অব.) হান্নান শাহ সাত সদস্যের এই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন।

প্রতিনিধি দলে ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মুশফিকুর রহমান,  এএসএম আবদুল হালিম, সৈয়দ সুজাউদ্দিন আহমেদ, নির্বাচন কমিশনের সাবেক সচিব আবদুর রশিদ সরকার ও সাবেক যুগ্ম সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার প্রতিনিধি দলে অংশ নেন।

বিকাল তিনটায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমদের সঙ্গে তারা বৈঠকে বসেন। এসময় তারা ইসিকে দলের কার্যালয় খুলে দেয়া, নেতকমীদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, প্রশাসনের দলবাজ কর্মকতাদের নির্বাচনী এলাকা থেকে বদলি, নির্বাচনের ১৫ দিন পূর্ব থেকে সেনাবাহিনী মোতায়েন, নির্বাচনের পূর্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, নিরপেক্ষ ভাবে ঝূকিপূর্ণ কেন্দ্র নির্ধারণ, রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যাক্তিকে নির্বাচনী কর্মকতার দায়িত্ব না দেয়া, প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে একজন করে নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগসহ ১৪ দফা দাবি পেশ করেন।

বৈঠক শেষে হান্নান শাহ সাংবাদিকদের বলেন, ইসির মহোদয়ের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। নির্বাচনের আগে সব রাজনৈতিক দলের অফিসগুলো খুলে দেয়ার বিষয়েও আমরা দাবি জানিয়েছি। কারও অফিস খোলা থাকবে আর কেউ অফিসই খুলতে পারবে না এমনটা যেন না হয়। সিইসি আমাদের আশ্বস্ত করেছেন। এছাড়া বলেন, আব্দুল আউয়াল মিন্টু ও নাসির উদ্দিন পিন্টুর ব্যাপারে ইসি বলেছেন, তারা যথাযথ সময়ে আবেদন করলে আমরা তা বিশেষ ভাবে বিবেচনা করবো।

স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, যেসব নেতাকর্মীরা নিরাপত্তাহীনতায় বাইরে বের হতে পারছে না তারা যেন বের হতে পারে এবং জনগণের কাছে ভোট চাইতে পারে সে বিষয়ে উদ্যোগ নেয়ার বিষয়েও আমরা নির্বাচন কমিশনকে অবহিত করেছি।

প্রসঙ্গত, আগামী ২৮ এপ্রিল ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণের দিন ঠিক করে তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। ইতোমধ্যে মনোয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষ হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *