সিইসির কাছে বিএনপির ১২ দফা সুপারিশ

আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে ১২টি সুপারিশ দিয়েছেন বিএনপি।

আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে ১২টি সুপারিশ দিয়েছেন বিএনপি।আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে ১২টি সুপারিশ দিয়েছেন বিএনপি।

মঙ্গলবার বিকেলে ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকারের নেতৃত্বে একটি দল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিব উদ্দিন আহমদের কার্যালয়ে এ সুপারিশমালা তুলে ধরেন।

সিইসির কাছে বিএনপির ১২ দফা সুপারিশগুলো

১. অবাধ, সুষ্ট ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে বির্তকিত কর্মকর্তাদের অবিলম্বে ছুটিতে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।
২. বিভিন্ন কাউন্সিলর প্রার্থীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে এসব বন্ধ করে অবিলম্বে জামিনে মুক্তির ব্যবস্থা করতে হবে।
৩. প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করতে হবে।
৪. সুনির্দিষ্ঠ প্রমাণ সম্বলিত অভিযোগ ব্যতিত এবং চার্জশীট না হওয়া মামলা ভুক্ত কিংবা অজ্ঞাত সংখ্যাভুক্ত বলে রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের বিষয়ে ইসিকে অবহিত করতে হবে।
৫. নির্বাচনী এলাকার দায়িত্বরত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সব পর্যায়ের সদস্যগণ পরিচয় পত্র দৃশ্যমান ভাবে ঝুলিয়ে রাখতে হবে।
৬. সূর্যোদয় হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ব্যতীত অন্য সময়ে অর্থাৎ রাতের বেলা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বাড়িতে হানা দেয়া বা অভিযান চালাতে পারবেন না।
৭. পোলিং এজেন্টদের পুলিশী হয়রানি বন্ধ করতে হবে।
৮. ২৫ তারিখ রাত ১২টার পূর্বে ব্যক্তি পর্যায়ে বৈধ অস্ত্র জমা নিতে হবে।
৯. নির্বাচনী কর্মকর্তাদের অর্থাৎ প্রিজাইডিং অফিসারদের তালিকা প্রার্থীদের সরবরাহ করতে হবে।
১০. নিয়োগপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দলীয় সম্পৃক্তার সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণসহ অভিযোগ আমলে নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
১১. সব প্রার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করে ঝুঁকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্রের তালিকা নির্ধারণ করতে হবে।
১২. উভয় সিটিতে বর্তমানে নিয়োজিত একটি বিশেষ এলাকার অধিবাসী ডিএমপির বিভিন্ন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে নতুন কর্মকর্তা নিয়োগ।

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশনের সিইসির কার্যালয়ে এ বৈঠক হয়। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার প্রতিনিধি দলটির নেতৃত্বে ছিলেন। দলে আরো ছিলেন দলটির স্থায়ী কমিটির দু’জন সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *