অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ তৃতীয়
খেলা

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ তৃতীয়

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ তৃতীয়আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের একাদশ আসরে বাংলাদেশের অধ্যায় শেষ হলো। ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে বাংলাদেশের যুবারা। যুব বিশ্বকাপে এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ অর্জন। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে শনিবার তৃতীয় স্থান নির্ধারনী ম্যাচে শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে ৩ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ তৃতীয় ও শ্রীলঙ্কা চতুর্থ হয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল।

প্রথমে ব্যাট করে ৪৮.৫ ওভারে ২১৪ রান করে শ্রীলঙ্কা যুব দল। জবাবে ৩ বল বাকি থাকতে ৭ উইকেটে ২১৮ রান তুলে ম্যাচ জিতে নেয় টাইগার জুনিয়ররা। মেহেদী হাসান মিরাজ ম্যাচ সেরা হন।

গোটা টুর্নামেন্ট জুড়েই বাংলাদেশেকে ভুগিয়েছে পিনাক-সাইফ হাসানকে নিয়ে গড়া ওপেনিং জুটি। ট্রফি জয়ের আশা শেষ হওয়ার পর ওপেনিংয়ে পরিবর্তন এনেছে টিম ম্যানেজমেন্ট। পিনাক-সাইফকে বসিয়ে ওপেনিংয়ে আসেন জয়রাজ শেখ ও জাকির হাসান। তাদের বদলে একাদশে সুযোগ পান জাকের আলী ও শফিউল হায়াত। যদিও ইনিংসের তৃতীয় বলেই জাকির (০) বোল্ড হন। জয়রাজ-জাকেরের জুটি ৫৮ রান যোগ করে। জয়রাজ ২৬ রান করে আউট হন। ১৯ রান করে আহত হয়ে অবসরে যান জাকের আলী। তৃতীয় উইকেটে নাজমুল হোসেন শান্ত ও অধিনায়ক মিরাজ ৮৮ রানের জুটি গড়েন। জয়টা তখন খুব কাছেই মনে হয়েছিল।

কিন্তু ৮ রানের ব্যবধানে তারা দুজনই রানআউট হন। টানা চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি করা মিরাজ ৫৩ রান করেন। শান্ত কাটা পড়েন ব্যক্তিগত ৪০ রানে। প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা শফিউল হায়াত ২১ রান করেন। শেষ দিকে মোসাব্বেকের ১১, সাইফুদ্দিনের ১৯ ও সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরে আসা জাকের আলীর অপরাজিত ৩১ রানে ভর করে জয় নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার শাম্মু আশান নেন ২ উইকেট।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ওপেনিং জুটিতে ভালো শুরুই পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা। কামিন্দু মেন্ডিস ও পেরেইরার ৬০ রানের জুটি বিচ্ছিন্ন হয় ১২তম ওভারে। পেরেইরাকে ফেরান মিরাজ। তিনি ৩৪ রান করেন। পরে দশ রানের মধ্যে কামিন্দু মেন্ডিস (২৬) ও আভিস্কা ফার্নান্দো (৬) মিরাজের শিকার হলে ৩ উইকেট হারায় লঙ্কানরা। উইকেট পতন অব্যাহতই ছিল। কিন্তু ষষ্ঠ উইকেটে অধিনায়ক চারিথ আসালঙ্কা ও হাসারাঙ্কা ডি সিলভা প্রতিরোধ গড়েন। তারা ৫৫ রানের জুটি গড়েন। যা শ্রীলঙ্কার স্কোর দুশো পার করায়। চারিথ আসালঙ্কা সর্বোচ্চ ৭৬ রান করেন। হাসারাঙ্কা ডি সিলভা ৩০, শাম্মু আশান ২৭ রান করেন। বাংলাদেশের পক্ষে মিরাজ ৩টি, হালিম-সাইফুদ্দিন ২টি করে উইকেট নেন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *