বাংলাদেশকে টেস্টের দ্বিতীয় স্তরে নামানের ষড়যন্ত্র
খেলা

বাংলাদেশকে টেস্টের দ্বিতীয় স্তরে নামানের ষড়যন্ত্র

বাংলাদেশকে টেস্টের দ্বিতীয় স্তরে নামানের ষড়যন্ত্রআইসিসির টেস্ট রেলিগেশন আইডিয়া মেনে নিয়েছে বাংলাদেশ। উপায় ছিল না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি)। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ে ১০ থেকে ৯ এ ওঠার সেই চ্যালেঞ্জটা নিয়ে এখন র‍্যাঙ্কিংয়ে ৮ নম্বরে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রায় ছুঁয়ে ফেলে আইসিসির চোখ রাঙানির জবাব দিয়েছে বাংলাদেশ। আর মাত্র ৮ পয়েন্ট বাড়িয়ে নিতে পারলে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টপকে সেরা ৮ এ উঠে আসবে তারা।

বাংলাদেশ গত ২ বছরে হোমে ১২ টেস্টে ৩ জয় ছাড়াও ড্র করেছে ৭টিতে। এরপরও বড় ধরনের ধাক্কা খেতে হচ্ছে মুশফিকদের। টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ে জিম্বাবুয়েকে টপকে যখন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ছুঁয়ে ফেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ, তখন ২ বছর আগের ধারণা থেকে সরে দাঁড়িয়ে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে আইসিসি।

টেস্ট খেলিয়ে দেশের সংখ্যা বাড়াতে দ্বি-স্তর বিশিষ্ট টেস্ট প্রবর্তন করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ে এবং ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপের ২ ফাইনালিস্টের সঙ্গে বাংলাদেশকে টেস্টের দ্বিতীয় স্তরে নামিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র করছে আইসিসি।

শীর্ষ ৭ র‍্যাঙ্কিংধারীদের নিয়ে প্রথম স্তর এবং পরের ৩ র‍্যাঙ্কিংধারীর সঙ্গে ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপের ২ ফাইনালিস্টকে নিয়ে ২০১৯ সাল থেকে দ্বিতীয় স্তরের টেস্ট ফর্মূলা প্রবর্তনে আইসিসি অনুমোদন দিলে বড় দলগুলোর সঙ্গে টেস্ট খেলার সুযোগ হারাবে বাংলাদেশ।

আইসিসির ক্রিকেট কমিটিও সম্প্রতি এই প্রস্তাবকে সমর্থন করে বিবৃতি দিয়েছে। আগে আইসিসি কোনো প্রস্তাব করলে বিরোধিতা করত চার-পাঁচটি দেশ।

বিসিবির সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, “আমাদের জন্য এটা এক ধরনের সুযোগও। কারণ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ে এবং ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপের দুই ফাইনালিস্টের সঙ্গে খেলে আমরা র‍্যাঙ্কিং বাড়িয়ে নিয়ে ৭ নম্বরে উঠে প্রথম স্তরে ওঠার সুযোগ পাচ্ছি। যেহেতু এখন আমাদের সঙ্গে বড় দলগুলো খেলতে তেমন আগ্রহী নয়, তাই দ্বিতীয় স্তরে খেলে প্রমোশন পেয়ে প্রথম স্তরে উঠলে শর্ত সাপেক্ষে টেস্টের দ্বিতীয় স্তরে খেলতে রাজি বলে জানিয়েছেন তিনি।

তার বক্তব্য, “আমাদের শর্ত দু’টি। প্রথমটি হল সদস্যপদের ক্ষেত্রে আমাদের স্ট্যাটাস এখন যা আছে, তা থাকতে হবে। দ্বিতীয়টি হল রাজস্ব। ন্যূনতম গ্যারান্টি মানি কত পাব, তা নিশ্চিত করে বলতে হবে আইসিসিকে।”

২০১৪ সালে আইসিসির বার্ষিক সভায় ২০২০ সাল পর্যন্ত এফটিপির আওতায় দ্বি-পাক্ষিক সফরসূচি চূড়ান্ত হলেও ধাক্কা আসছে চলমান এফটিপিতে। এ মাসের শেষ দিকে স্কটল্যান্ডের এডিনবরায় আইসিসির বার্ষিক সাধারণ সভায় দ্বি-স্তর বিশিষ্ট টেস্ট ফর্মুলা অনুমোদিত হলে প্রথম স্তরের দেশ পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা এবং অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে পূর্ব নির্ধারিত ৯টি টেস্ট খেলা থেকে বঞ্চিত হবে বাংলাদেশ।

শুধু তাই নয়, স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল গাজী টিভির সঙ্গে ৬ বছরের চুক্তিতে ২০ মিলিয়ন ২৫ হাজার মার্কিন ডলারে (বাংলাদেশী মুদ্রায় ১৬০ কোটি ২০ লাখ টাকা) বিক্রিত মিডিয়া এন্ড মার্কেটিং রাইটস থেকেও আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হওয়ার পথে বাধা আসবে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *