AHRC-sees-Indias-hand-in-Farhad-Mazhar-abduction

'ফরহাদ মজহার অপহরণে ভারত জড়িত'

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা এশিয়ান হিউম্যান রাইটস এক প্রতিবেদনে অভিযোগ করেছে কবি, সাহিত্যিক ও বুদ্ধিজীবি ফরহাদ মজহারের অপহরণ নাটকে ভারত জড়িত থাকতে পারে। এশিয়ান হিউম্যান রাইটস বলেন, তদন্ত সংস্থাদের তদন্তে ভারতের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাচ্ছে।

হংকং ভিত্তিক এ সংস্থাটি আরও বলেন, একের পর এক এ ধরনের অপহরণ সেই সব বাংলাদেশিদের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দেখা দিচ্ছে যারা বাংলাদেশে ভারতের আধিপত্য নিয়ে বেশি সোচ্চার।

এশিয়ান হিউম্যান রাইটস তাদের বিবৃতিতে আরও বলছে, ফরহাদ মজহারকে কারা অপহরণ করেছে এটা যদি বের করা না হয় তাহলে এটা পরিষ্কার হয়ে যাবে যে, বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারের কোন নিয়ন্ত্রণ নাই, সব কিছু করা হচ্ছে দিল্লী থেকে।

এশিয়ান হিউম্যান রাইটস জোর দিয়ে বলে, অনেক প্রমাণের সাথে ফরহাদ মজহারের ঘটনা আরেকটা প্রমান হিসেবে যুক্ত হলো। এগুলো দেখিয়ে দিচ্ছে যে, বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারের কোন নিয়ন্ত্রণ নাই, সব কিছু করা হচ্ছে দিল্লী থেকে।

তারা আরও বলছে, বাংলাদেশ পুলিশ এই অপহরণে জড়িত না হলে ১৮ ঘণ্টায় ফরহাদ মজহারকে ৩০০ কিলোমিটার কারা ভারতীয় সীমান্তে নিয়ে গেল? পুলিশ বা র‍্যাব অপরাধীদের ধরলো না কেন?

মানবাধিকার সংগঠনটি প্রশ্ন তুলেছে, অবস্থান সনাক্ত হওয়ার পরও তাকে উদ্ধারে কীভাবে ১৮ ঘণ্টা সময় লেগেছে? ওই সময়ে তাকে ভারত সীমান্তের দিকে অন্তত ৩০০ কিলোমিটার দূরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলেও দাবি ওই সংগঠনটির।

তাদের দাবি, ‘যদি সন্ত্রাসীরাই তাকে নিয়ে যায়, তাহলে কীভাবে রাস্তায় পুলিশ ও র‌্যাবের চেকপোস্ট ফাঁকি দেওয়া সম্ভব হলো? এটি অপহরণের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জড়িত থাকার ইঙ্গিত দেয়।’

ভারতীয় কোনো বাহিনীই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে দেশের কোনো কোনো মহল মনে করে বলে দাবি করেছে এএইচআরসি। এ ছাড়া ওই ঘটনার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্য এই ঘটনায় ভারত সরকারের জড়িত থাকার ইঙ্গিত দেয় বলে দাবি মানবাধিকার সংগঠনটির।

অপহরণের পর উদ্ধার হওয়া কবি ও প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহার বর্তমানে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *