যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি
আন্তর্জাতিক

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারিযুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইতিহাসের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ডেমোক্রেটিক দলের আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌এবং ফার্স্ট লেডি হিলারি ক্লিনটন।

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের ফিলাডেলফিয়া শহরের ওয়েলস ফার্গো সেন্টারে সোমবার থেকে শুরু হওয়া চার দিনব্যাপী ডেমোক্রেটিক দলের জাতীয় সম্মেলনে দলীয় প্রতিনিধিরা আনুষ্ঠানিকভাবে এই মনোনয়ন দেন।

এর আগে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী বার্নি স্যান্ডার্স নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়ে হিলারি ক্লিনটনের প্রতি জোরালো সমর্থন জানান। তিনি বলেন, হিলারি ক্লিনটনের পাশে থাকতে পেরে তিনি গর্বিত।

আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন ঘোষণার পর বক্তৃতা করেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও হিলারির স্বামী বিল ক্লিনটন। বক্তৃতায় বিল প্রেসিডেন্ট হিসেবে হিলারির যোগ্যতার কথা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি হিলারির সঙ্গে তাঁর সাক্ষাতের বিষয়টিও স্মরণ করেন।

ডেমোক্রেটিক সম্মেলনে চার হাজার ৭৬৫ ডেলিগেট ভোট দেন। দলের মনোনয়ন পেতে দুই হাজার ৩৮৩ ডেলিগেটের সমর্থন প্রয়োজন।

সম্মেলনের আগেই প্রয়োজনীয় ডেলিগেটের সমর্থন জোগাড় করেন হিলারি ক্লিনটন। তিনি দুই হাজার ৮০৭ ডেলিগেটের সমর্থন পেয়েছেন। এর মধ্যে ৬০২ জন সুপার ডেলিগেট। অন্যদিকে মনোনয়ন দৌড়ে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে থাকা বার্নি স্যান্ডার্সের ঝুলিতে ছিল এক হাজার ৮৯৪ ডেলিগেটের সমর্থন। তাই সম্মেলনে হিলারি ক্লিনটনের মনোনয়ন ছিল অনুষ্ঠানিকতা।

এর পরও বার্নি স্যান্ডার্সের সমর্থকরা আশায় বুক বেঁধে হাজির হয়েছিল ফিলাডেলফিয়ায়। সম্মেলনের কাছে তারা বিক্ষোভ করে। তবে বার্নি স্যান্ডার্সের বক্তৃতায়ই আশাহত হয় এই সমর্থকরা।

বিশ্লেষকদের মতে, ডেমোক্রেটিক সম্মেলনে হিলারি ক্লিনটনের প্রতি প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্সের সমর্থক দলের শক্তিশালী অবস্থানের কথাই তুলে ধরেছে।

আনুষ্ঠানিকভাবে মনোনীত হলেও হিলারি ক্লিনটন কিছুতেই তার ই-মেইল কেলেঙ্কারির থাবা থেকে মুক্ত হতে পারছেন না৷ জনমত সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, জনসংখ্যার একটা উল্লেখযোগ্য অংশ এই কারণে তার প্রতি আস্থা দেখাতে পারছেন না৷ তার উপর সম্প্রতি ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রায় ১৯,০০০ ই-মেইল হ্যাক করা হয়েছে৷

তা থেকে স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে, যে দলের জাতীয় কমিটি শুরু থেকেই বার্নি সান্ডার্সের বদলে ক্লিনটনের প্রতি পক্ষপাত দেখিয়ে এসেছে৷ এই ঘটনার জের ধরে কমিটির সভাপতিকে পদত্যাগ করতে হয়েছে৷ সান্ডার্স নিজে ক্লিনটনের প্রতি সমর্থন দেখালেও তার অনেক অনুগামী এখনো প্রতিবাদ বিক্ষোভ দেখিয়ে চলেছে৷

রাশিয়া এই সব দলীয় ই-মেইল ফাঁস করেছে বলে প্রথমেই সন্দেহ হয়েছিল৷ এবার খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা স্বীকার করেছেন, এই সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না৷

এনবিসি নিউজ-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ওবামা বলেন, “সবকিছুই সম্ভব৷ এমনকি মস্কো অ্যামেরিকার নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে,” সেই ইঙ্গিতও দিয়েছেন তিনি৷ মস্কো রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকেই আগামী মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দেখতে চায়, এমন লক্ষণ বার বার দেখা যাচ্ছে৷

ওবামা বলেন, “ট্রাম্প নিজে বার বার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের প্রশংসা করে চলেছেন৷” তাছাড়া তিনি বলেন, “ন্যাটো বাল্টিক অঞ্চলের দেশগুলির সুরক্ষা নিয়ে তেমন মাথা ঘামাবে না৷ এই মন্তব্যের ফলেও রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমে ট্রাম্প আরও প্রশংসিত হচ্ছেন৷”

রাশিয়া অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷ প্রেসিডেন্ট পুতিনের এক মুখপাত্র এই অভিযোগকে ‘অ্যাবসার্ড’ বা উদ্ভট বলে বর্ণনা করেন৷ ট্রাম্প নিজেও এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন৷ এমনকি উইকিলিক্স-এর প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান আসাঞ্জ বলেছেন, এই অভিযোগের সপক্ষে কোনো প্রমাণ নেই৷ এমনকি আরও ই-মেল ফাঁস হতে চলেছে বলে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন৷

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *