প্রথম জুমায় মক্কায় ১০ লাখ মুসলিমের নামাজ আদায়

পবিত্র নগরী মক্কায় পবিত্র কাবা বা গ্রান্ড মসজিদে এখন ধর্মপ্রাণ মুসলমানের ঢল। গত শুক্রবার সেখানে প্রায় ১০ লাখ মুসলিম একত্রে জুমার নামাজ আদায় করেন।

পবিত্র নগরী মক্কায় পবিত্র কাবা বা গ্রান্ড মসজিদে এখন ধর্মপ্রাণ মুসলমানের ঢল। গত শুক্রবার সেখানে প্রায় ১০ লাখ মুসলিম একত্রে জুমার নামাজ আদায় করেন। পবিত্র নগরী মক্কায় পবিত্র কাবা বা গ্রান্ড মসজিদে এখন ধর্মপ্রাণ মুসলমানের ঢল। গত শুক্রবার সেখানে প্রায় ১০ লাখ মুসলিম একত্রে জুমার নামাজ আদায় করেন। এর মধ্যে রয়েছেন নিয়মিত প্রার্থনাকারী ও ওমরাহ পালনকারী।

তারা সমবেত হয়েছেন সৌদি আরবের ভেতর ও বাইরে থেকে। পবিত্র রমজানের প্রথম জুমার নামাজ একত্রে আদায় করতে চারদিক থেকে ছুটে আসতে থাকেন ধর্মপ্রাণ মানুষ। সে এক অভাবনীয় দৃশ্য। গ্রান্ড মসজিদ সয়লাব হয়ে যায় মুসল্লিতে। একপর্যায়ে বাইরে চলে আসে মুসল্লির স্রোত। কিভাবে এত মুসল্লিকে সামাল দেয়া যায় তা আগে থেকে প্রস্তুতিতে ছিল কর্তৃপক্ষের। আল্লাহর ঘরের মেহমানদের যাতে কোন সমস্যা না হয় সে জন্য সংশ্লিষ্ট সব পক্ষ তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আরব নিউজ।

এতে বলা হয়, আল্লাহ ও তার রাসুল (সা.)-এর প্রেমে মাতোয়ারা এসব মানুষকে স্থান সংকুলান করতে পবিত্র কাবা ঘরকে বেষ্টনকারী মার্বেলে নির্মিত মাতাফ নির্মাণ করা হয়েছে। তা বিস্তৃত তৃতীয় তলা পর্যন্ত। বয়োবৃদ্ধদের জন্য সেখানে আছে বিশেষভাবে ডিজাইন করা দু’রকমের হুইল চেয়ার। মক্কার প্রবেশ পথে যানবাহনগুলো কিভাবে সজ্জিত থাকবে তা দেখাশোনা করেন ট্রাফিক সংশ্লিষ্টরা। কেন্দ্রীয় অঞ্চল যানবাহনমুক্ত করে ফেলা হয়। যাতে গ্রান্ড মসজিদে যেতে আগতদের কোন অসুবিধা না হয়।

সৌদি আরবে এখন তাপমাত্রা অনেক বেশি। তাই মেহমানদের সুবিধার জন্য গ্রান্ড মসজিদের ভেতরটা করা হয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। এর সঙ্গে রয়েছে ২৫৯টি ফ্যান। এই ফ্যান শীতল বাতাস ছড়িয়ে দিচ্ছে বাইরের দিকে। এতে বাইরের দিকে যেসব মেহমান সমবেত হন বা হয়েছেন তারা স্বস্তি পাচ্ছেন। গ্রান্ড মসজিদের গেটে ও আশপাশে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক প্রহরী ও নিরাপত্তা রক্ষী। মসজিদের দরজা ও এসকেলেটরে প্রবেশপথে তারা বয়োবৃদ্ধদের সহায়তা করছেন কিভাবে তা ব্যবহার করতে হবে এবং নিরাপদ থাকা যাবে তা নিয়ে। গ্রান্ড মসজিদ নিরাপত্তা বাহিনীর কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহাম্মদ আল আহমাদি বলেন, তাপমাত্রা অনেক বেশি থাকা সত্ত্বেও মসজিদের শতকরা ৯৫ ভাগ সক্ষমতা ব্যবহার করা হয়েছে। এখানেই শেষ নয়। এবার রমজানে ওমরাহ পালনকারীর সংখ্যা কোটি ছাড়াতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *