হাসপাতাল থেকে পুলিশ হেফাজতে সালাহ উদ্দিন

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদকে শিলংয়ের নিগ্রিমস হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদকে শিলংয়ের নিগ্রিমস হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে শিলংয়ের নিগ্রিমস হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। এরপর থেকে তিনি পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। মঙ্গলবার তাকে আদালতে তোলা হবে।

মঙ্গলবার শিংলয়ের স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে চারটায় সালাহ উদ্দিন আহমেদকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয় বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ভাস্কর বরগাইন।

৬২ দিন নিখোঁজ থাকার পর ১১ মে শিলংয়ে উদ্ধার হন বিএনপির এ নেতা। উদ্ধারের পর তিনি স্থানীয় পুলিশের তত্ত্বাবধানে প্রথমে শিলংয়ের সিভিল হাসপাতাল ও পরে নিগরিমসে ভর্তি হন।

তার বিরুদ্ধে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলা করেছে শিলংয়ের পুলিশ। এই মামলায় বুধবার তাকে আদালতে হাজির করা হবে।

বাংলাদেশ থেকে সালাহ উদ্দিনের স্ত্রী হাসিনা আহমেদ শিলং গেছেন। তিনি সালাহউদ্দিনের সঙ্গে রয়েছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সালাহ উদ্দিন আহমেদ ঢাকার উত্তরা থেকে নিখোঁজের দুই মাস পর গত ১১ মে ভারতের শিলংয়ের থানায় হাজির হলে সেখানকার পুলিশ তাকে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশের অভিযোগে গ্রেফতার করে। তবে তিনি গত দুই মাস কোথায় ও কীভাবে ছিলেন, তা নিয়ে কেউই কিছু বলতে পারছে না। সালাহ উদ্দিন আহমেদও নিজে মুখ খুলছেন না।

প্রথমে একদিন একটি মানসিক হাসপাতালে, পরে এক সপ্তাহ শিলংয়ের সিভিল হাসপাতালে এবং গত এক সপ্তাহ নেগ্রিমস হাসপাতালে তিনি চিকিৎসাধীন বন্দী হিসেবে ছিলেন।

দুই বার গোয়েন্দা অফিসাররা হাসপাতালে তার সঙ্গে কথা বললেও অসুস্থতার কারণে গত ১৫ দিনে তার আনুষ্ঠানিক পুলিশি জেরা হয়নি।

এর আগে মেঘালয়ের নর্থ ইস্টার্ন ইন্দিরা গান্ধী রিজিওনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ এ্যান্ড মেডিকেল সায়েন্সেস (নেগ্রিমস) হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র থেকে মঙ্গলবার দুপুরে সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

নেগ্রিমসের পরিচালক এ জি এহেনগার বলেছেন, সালাহ উদ্দিনের মেডিক্যাল রিপোর্ট দেখেই চিকিৎসকরা তাকে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *