রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুর উপজেলার বাতাসন এলাকায় ঢাকামুখী যাত্রীবাহী একটি বাসে পিকেটারের পেট্রোল বোমায় শিশুসহ নিহত ৪।
সারাদেশ

পিকেটারের পেট্রোল বোমায় শিশুসহ নিহত ৪

রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুর উপজেলার বাতাসন এলাকায় ঢাকামুখী যাত্রীবাহী একটি বাসে পিকেটারের পেট্রোল বোমায় শিশুসহ নিহত ৪।রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের মিঠাপুকুর উপজেলার বাতাসন এলাকায় ঢাকামুখী যাত্রীবাহী একটি বাসে পিকেটাররা পেট্রোল বোমা হামলা চালিয়েছে। এতে বাসের মধ্যেই অগ্নিদগ্ধ হয়ে এক শিশুসহ ৪ জন ঘটনাস্থলে মারা গেছে। এতে আহত হয়েছেন প্রায় ২০ জন যাত্রী ।

অগ্নিদগ্ধ ২০ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ২জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

মঙ্গলবার রাত দেড়টার দিকে অগ্নিদগ্ধ হয়ে বাসেই ৪ জন নিহত হয়েছেন বলে  নিশ্চিত করেছেন রংপুর পুলিশ সুপার আব্দুর রাজ্জাক পিপিএম।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত জামায়াত-শিবিরের আট কর্মীকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার রাত দেড়টার দিকে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাস খলিল পরিবহন (ঢাকা মেট্টো ব-০১১-৬৮৬০) রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার বাতাসন  এলাকায় পৌঁছলে বাসটিকে লক্ষ্য করে পিকেটাররা পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে পুরো বাসটিতে দ্রুত আগুন ধরে যায়। এসময় বাসে থাকা এক শিশুসহ ৪ যাত্রী অগ্নিদগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এতে আহত হয়েছেন প্রায় ২০ জন যাত্রী ।

অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে অন্তত ১৭ জনকে অশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তছিরন নেছা নামে একজন বৃদ্ধার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এ ছাড়া এক সেনা সদস্যের স্ত্রীসহ ৩ জনকে রংপুর সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন- সেনা সদস্য নুর আলমের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম, মেয়ে নুসরাত, নাদিয়া, বোন তছিরন, আলেয়া, নাতনি ফারজানা, ভাগ্নে বউ মিনারা ও ভাগ্নে আল-আমিন রয়েছেন।

এদিকে অগ্নিদগ্ধ যাত্রীরা জানায়, খলিল পরিবহন নামে বাসে চড়ে তারা উলিপুর থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলেন। রংপুরের মিঠাপুকুর এলাকার কাছে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে আকস্মিকভাবে বাসে দাউদাউ করে আগুন জ্বলে উঠে। তারা প্রাণ ভয়ে বাস থেকে বের হবার চেষ্টা করেন। এ সময় অনেকেই বাসের জানালার গ্লাস ভেঙে বের হবার চেষ্টা করেন। কিন্তু অতিরিক্ত যাত্রী থাকায় অনেকেই বের হতে না পেরে তারা অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিট বিভাগের ইন্টার্নি চিকিৎসক আমিমুল আহসান রাফি জানান, অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে অনেকেরই শরীরের ৯০ভাগ ঝলসে গেছে। এদের মধ্যে অবস্থা ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মিঠাপুকুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল হোসেন জানান, নিহত ৪ জনের নাম-পরিচয় প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আজ ভোর পর্যন্ত জামায়াত-শিবিরের আটজন কর্মীকে আটক করা হয়েছে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *