আবু ধাবি টেস্টে প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৬ উইকেট হারিয়ে ৫৭০ রান সংগ্রহ করে ইনিংস ঘোষণা করেছে মিসবাহ উল হক বাহিনী।
খেলা

পাকিস্তান ৫৭০, ইউনিস খান ২১৩

আবু ধাবি টেস্টে প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৬ উইকেট হারিয়ে ৫৭০ রান সংগ্রহ করে ইনিংস ঘোষণা করেছে মিসবাহ উল হক বাহিনী।আবু ধাবি টেস্টে পাকিস্তানের গড়া রানের পাহাড় অতিক্রমের পথে শুরুতেই হোচট খেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। শুক্রবার সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৬ উইকেট হারিয়ে ৫৭০ রান সংগ্রহ করে ইনিংস ঘোষণা করেছে মিসবাহ উল হক বাহিনী। জবাবে অস্ট্রেলিয়া ব্যাট করতে নেমে পঞ্চম ওভারের প্রথম বলেই হারিয়েছে রজার্সকে।

অস্ট্রেলিয়া ৪.৩ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ২১ রান সংগ্রহ করেছে। ব্যাট করছেন ডেভিড ওয়ার্নার (১৬) ও নাথান লিয়ন (০)।

পাকিস্তানের পক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন ইউনিস খান (২১৩)। সেঞ্চুরি করেছেন দলীয় অধিনায়ক মিসবাহ উল হক (১০১)  ও  আজহার আলি (১০৯)। এছাড়াও হাফিজ ৪৫ শেহজাদ ৩৫ রান করেন।

অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে স্টার্ক সর্বোচ্চ ২ উইকেট নেন। এছাড়া জনসন, সিডল ও লিওন একটি করে উইকেট নেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার টেস্টের প্রথম দিনের দুই উইকেটে সংগ্রহ করা ৩০৪ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে পাকিস্তান। তখন ব্যাট করছিলেন আজহার আলি ১০১ ও ইউনিস ১১১ রানে। সেই আজহার আলি আজ আরো আট রান সংগ্রহ করে ব্যক্তিগত ১০৯ রানে মিশেল স্টার্কের শিকার হয়েছেন।

৯৮.১ ওভারে পাকিস্তানের দলীয় ৩৩২ রানে আউট হন টপ অর্ডার ওই ব্যাটসম্যান। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে একটি করে উইকেট নিয়েছেন মিশেল জনসন, নাথান লায়ন ও মিশেল স্টার্ক।  পাকিস্তান দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

আট হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করলেন ইউনিস খান

জাভেদ মিয়াঁদাদ, ইনজামাম-উল হকের পর তৃতীয় গর্বিত ক্রিকেটার ইউনিস খান, যিনি পাকিস্তানের হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে আট হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করলেন।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ক্যারিয়ারের পঞ্চম ডাবল সেঞ্চুরি পূরণ করেন ইউনিস খান। শুধু তাই নয়, যে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এর আগে সেঞ্চুরিই ছিল না, তাদের বিপক্ষে করলেন টানা তিন সেঞ্চুরি। সর্বশেষ ৯০ বছরে অসিদের বিপক্ষে টানা তিন সেঞ্চুরি আর কেউ করতে পারেনি। অথ্যাৎ ৯০ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন ইউনিস খান।

পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৮ হাজার ৮৩২ রান করেন জাভেদ মিয়াঁদাদ। ৮ হাজার ৮২৯ রান করেছেন ইনজামাম-উল হক।

সংখ্যায় ইউনিসের রেকর্ড ও পাকিস্তান

পাকিস্তানের হয়ে ৩, ৪ এবং ৫ নাম্বারে ব্যাট করতে নেমে একই ইনিংসে সেঞ্চুরি করেছেন এই প্রথম তিন ব্যাটসম্যান। আজহার আলি, ইউনিস খান এবং মিসবাহ-উল হক।

গত ২০বছরে দ্বিতীয়বারেরমত ৪০ বছর বয়সে টেস্ট ক্রিকেটে সেঞ্চুরির দেখা মিলল। প্রথম জন ছিলেন শিবনারায়ন চন্দরপল। দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হলেন এখন মিসবাহ-উল হক। উপমহাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে মিসবাহ দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে এ কৃতিত্ব গড়েন। এর আগে ১৯৫১ সালে ভারতের বিজয় মার্চেন্ট ৪০ বছর বয়সে সেঞ্চুরি করেছিলেন। ক্রিকেট ইতিহাসে ১৯জন ব্যাটসম্যান মোট ৩৮টি সেঞ্চুরি করেন ৪০ বছর বয়সে।

 ৩

পাকিস্তানের হয়ে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ৮ হাজারের বেশি রান করলেন ইউনিস খান। জাভেদ মিয়াঁদাদ ও ইনজামাম-উল হকের পর এখন রয়েছে তিনি। টেস্ট ক্রিকেটে ২৮তম ব্যাটসম্যান হিসেবে এ ক্লাবের সদস্য হলেন তিনি।

১১

মোট ১১টি ইনিংসে সেঞ্চুরি জুটি গড়েন মিসবাহ এবং ইউনিস খান। পাকিস্তানের যে কোন জুটির ক্ষেত্রে এটাই সর্বোচ্চ। এর আগে ১০টি করে শতরানের জুটি গড়েছিলেন ইনজামাম-ইউসুফ এবং মিয়াঁদাদ ও মুদাস্সার নজর ।

২৮  

পাকিস্তান ইনিংসে ৩ রান নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে মোট ২৮ বার। ২০০১ সালের পর দৌড়ে ৩ রান নেওয়ার ঘটনা এটাই সবচেয়ে বেশিবার ঘটল। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৬ বার, ২০০৬ সালে এডিলেডে অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ড টেস্টে।

২৩৬ 

তৃতীয় উইকেট জুটিতে আজহার এবং ইউনিস খান মিলে যোগ করেন ২৩৬ রান। যা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাকিস্তানের হয়ে তৃতীয় উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ রান।

৫৭০

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে পাকিস্তানের চতুর্থ সর্বোচ্চ ইনিংস। এছাড়া আরব আমিরাতে কোন দলের পক্ষে এটাই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

২৪৪৭ 

অধিনায়ক হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে মিসবাহ-উল হকের রান ২৪৪৭। যা পাকিস্তানের হয়ে রেকর্ডও বটে। এর আগে অধিনায়ক হিসেবে ইমরান খানই ছিলেন সর্বোচ্চ ২৪০৮ রান সংগ্রাহক। ইনজামামের রান ছিল ২৩৯৭।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *