তৃতীয় দিনের খেলা শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৫৩৭ রান। প্রথম ইনিংসে ৩৩২ রানে অলআউট হওয়া বাংলাদেশের চেয়ে এখন ২০৫ রানে এগিয়ে আছে অতিথিরা।
খেলা

হাফিজ ২২৪, পাকিস্তান ২০৫ রানে এগিয়ে

তৃতীয় দিনের খেলা শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৫৩৭ রান। প্রথম ইনিংসে ৩৩২ রানে অলআউট হওয়া বাংলাদেশের চেয়ে এখন ২০৫ রানে এগিয়ে আছে অতিথিরা।তৃতীয় দিনের খেলা শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৫৩৭ রান। প্রথম ইনিংসে ৩৩২ রানে অলআউট হওয়া বাংলাদেশের চেয়ে এখন ২০৫ রানে এগিয়ে আছে অতিথিরা।

আসাদ ও সরফরাজ দুজনেই ৫১ রানে ব্যাট করছেন। অবিচ্ছিন্ন ষষ্ঠ উইকেটে ৬৯ রানের জুটি গড়েছেন তারা। চতুর্থ দিনে তাদের ব্যাটিংয়ে স্থির হবে ইনিংস হার এড়াতে পারবে কিনা বাংলাদেশ।

এর আগে ১ উইকেটে ২২৭ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে মোট ৫ উইকেট হারিয়ে আরো ৩১০ রান যোগ করে সফরকারীরা। দিনভর বল কুড়াতেই ব্যস্ত ছিল টাইগার ফিল্ডাররা।

সকালে উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নিতে বেশি সময় নেননি হাফিজ ও আজহার আলি। দ্বিতীয় উইকেটে আরও ৫০ রান যোগ করে বিচ্ছিন্ন হন এই দুই জন। আজহারকে (৮৩) বোল্ড করে তার সঙ্গে হাফিজের ২২৭ রানের জুটি ভাঙেন শুভাগত হোম চৌধুরী।

তৃতীয় উইকেটে ইউনুস খানের সঙ্গে ৬২ রানের আরেকটি জুটি উপহার দেন হাফিজ। অবশ্য পাক টেস্ট জিনিয়াস ইউনুসকে (৩৩) পরিষ্কার বোল্ড করে এ যাত্রায় বেশিদূর এগোতে দেননি তাইজুল।

তখনো থামছিলেন না হাফিজ। দ্বিশতকে পৌঁছানোর পথে অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হকের সঙ্গে অর্ধশত রানের আরেকটি জুটি গড়েন হাফিজ। শুভাগতর লেগ স্টাম্পের বাইরের বল সুইপ করতে গিয়ে লেগ স্লিপে মাহমুদউল্লাহর ক্যাচে পরিণত হন হাফিজ। তবে আউট হওয়ার আগে ক্যারিয়ারের প্রথম দ্বিশত আদায় করে নেন তিনি। হাফিজের ৩৩২ বলে খেলা ২২৪ রানের ইনিংসটি ২৩টি চার ও ৩টি ছক্কায় সাজানো।

হাফিজ ফিরে গেলেও অতিথি বোলারদের চেপে বসতে দেননি মিসবাহ ও শফিক। ৬৬ রানের জুটি গড়ে স্বাগতিকদের হতাশা আরও বাড়ান তারা। অর্ধশতকে পৌঁছানো মিসবাহকে তাইজুল বিদায় করলেও স্বস্তি মেলেনি।

অতিথিদের সপ্তম উইকেট জুটি দ্রুত রান তোলার দিকে মনোযোগ দেয়। শফিক দেখেশুনে খেললেও আক্রমণাত্মক মেজাজেই ব্যাট করেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান সরফরাজ। সরফরাজ মাত্র ৫৪ বলে ২ ছক্কা ও ৩ চারে ৫১ আর শফিক ১০৩ বলে ৫১ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন।

এদিকে ডানহাতের অনামিকায় চোট পাওয়া বাংলাদেশের অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম তৃতীয় দিন মাঠে নামেননি। মুশফিকের অনুপস্থিতিতে মাঠে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন সহ-অধিনায়ক তামিম ইকবাল। আর ‘কিপিং’ করেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *