‘বেগম’ সম্পাদক নূরজাহান বেগম ইন্তেকাল করেছেন
জাতীয়

‘বেগম’ সম্পাদক নূরজাহান বেগম ইন্তেকাল করেছেন

‘বেগম’ সম্পাদক নূরজাহান বেগম ইন্তেকাল করেছেনবেগম পত্রিকার সম্পাদক নূরজাহান বেগম ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রজিউন। মুত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯১ বছর।

সোমবার সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম নারী বিষয়ক সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘বেগম’ সম্পাদক নূরজাহান বেগমের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এর আগে বার্ধক্যজনিত জটিলতার কারণে গত ৬ মে নূরজাহান বেগমকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর ৮ মে শনিবার দুপুরে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়।

১৯২৫ সালের ৪ জুন চাঁদপুরের চালিতাতলী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নূরজাহান বেগম। তিনি বাংলাদেশের নারী সাংবাদিকতার পথিকৃৎ এবং সাহিত্যিক। ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম নারী বিষয়ক সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘বেগম’র সম্পাদনায় সূচনালগ্ন থেকে জড়িত ছিলেন তিনি। তিনি ছয় দশক ধরে বেগম পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

নারীর অবস্থার উন্নয়ন ও সাহিত্যক্ষেত্রে অবদানের জন্য নূরজাহান বেগম বহু পদক ও সম্মাননা পেয়েছেন। ১৯৯৭ সালে তিনি রোকেয়া পদক পান। এ ছাড়া বাংলাদেশ মহিলা সমিতি, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, লেখিকা সংঘ, কাজী জেবুন্নেসা মাহাবুবুল্লাহ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ সাংবাদিক ফোরাম, রোটারি ক্লাব প্রভৃতি সংগঠন থেকে তিনি স্বর্ণপদক পেয়েছেন।

বেগম পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয় ১৯৪৭ সালের ২০ জুলাই যখন নূরজাহান বেগম বিএ শ্রেণিতে পড়তেন। তার বাবা ‘সওগাত’ সম্পাদক মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন প্রতিষ্ঠিত বেগম পত্রিকার প্রথম সম্পাদক ছিলেন সুফিয়া কামাল। প্রথম চার মাস সম্পাদক হিসেবে এর দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

নূরজাহান বেগমের মতো যারা সাখাওয়াত মেমোরিয়াল স্কুল ও লেডি বেবোর্ন কলেজে পড়তেন তারা সবাই মিলে বেগম-এর জন্য কাজ করতেন। বেগমের শুরু থেকে নূরজাহান বেগম ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক। তিনি বিয়ে করেন দৈনিক ইত্তেফাকের কচি-কাঁচার মেলার সাবেক পরিচালক রোকনুজ্জামান খান দাদা ভাইকে। তিনি বেশ কয়েক বছর আগেই ইন্তেকাল করেন।

নূরজাহান বেগম মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ঢাকার শরৎ গুপ্ত রাস্তার ৩৮ নম্বর বাড়িতে বাস করেন যেখানে তিনি প্রায় ৬৪ বছর ধরে থাকছেন। প্রায় ৬৩ বছর ধরে প্রকাশিত হচ্ছে তার প্রতিষ্ঠিত বেগম পত্রিকা। যদিও অর্থনৈতিক সমস্যায় পড়তে হয়েছিল পত্রিকাটা নিয়ে কিন্তু বেগম-এর উদ্দেশ্যের কোনো পরিবর্তন হয়নি। নারী জাগরণ, নতুন লেখক সৃষ্টি, সাহিত্য ও সৃজনশীলতায় নারীকে উৎসাহী করাই ছিল মূল লক্ষ্য।

নূরজাহান বেগম তিনি দুই কন্যা সন্তানের জননী।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *