ফাঁসিতে ঝুলিয়ে নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর
জাতীয়

ফাঁসিতে ঝুলিয়ে নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

ফাঁসিতে ঝুলিয়ে নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরএকাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত জামায়াতের ইসলামীর আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে। বুধবার রাত ১২টা ১০ মিনিটে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। জল্লাদ রাজু ফাঁসিতে ঝুলিয়ে কার্যকর করেন মৃত্যুদণ্ড।

মৃত্যুকালে মতিউর রহমান নিজামীর বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর।

মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে জামায়াত নেতা নিজামীকে গোসল করানো হয়। পরে কেন্দ্রীয় কারা মসজিদের ইমাম হাফেজ মনির হোসেন মতিউর রহমান নিজামীকে তওবা পড়ান।

ফাঁসির মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন- জেলা প্রশাসক মো. সালাহ উদ্দিন, সিভিল সার্জন আবদুল মালেক মৃধা, জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

জল্লাদ রাজুর হাতেই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয় মতিউর রহমান নিজামীর। এর আগে বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসিও কার্যকর করেন রাজু। জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ডের সময় সহযোগী ছিলেন রাজু।

এদিকে ফাঁসি কার্যকরের পর নিজামীর লাশ বহনের জন্য চারটি অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে আগে থেকেই নির্দেশ প্রদান করে রাখেন কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ।

রাত পৌনে ৮টার দিকে তিনটি মাইক্রোবাসে করে নিজামীর পরিবারের ২১ জন সদস্য কারাগারের ফটকে আসেন। এরপর তাঁরা ভেতরে ঢোকেন।

এর আগে গতকাল সোমবার রাত ৯টার দিকে নিজামীকে রিভিউ আবেদন খারিজ করে দেওয়া রায় পড়ে শোনানো হয়। সেদিন বিকেলে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ রিভিউ আবেদন খারিজ করে দেওয়া রায় প্রকাশ করেন।

এরপর বিকেল ৫টার কিছু পর আপিল বিভাগের একটি প্রতিনিধিদল রায়ের কপি ট্রাইব্যুনালে পৌঁছে দেয়। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল সেদিন সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে লাল কাপড়ে মোড়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি নিয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের দিকে রওনা হয়। পরে ৭টা ৫ মিনিটে জ্যেষ্ঠ জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবীর রায়ের কপি নেন।

গত রোববার রাতে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মতিউর রহমান নিজামীকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে আসা হয়।

গত ৫ মে আপিলের রায়ের বিরুদ্ধে করা পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে নিজামীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় বুদ্ধিজীবী হত্যা, ধর্ষণসহ চারটি অভিযোগে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় নিজামীর বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়েছে।

চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বুধবার এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে আদালত অপর চারটি অভিযোগে মতিউর রহমান নিজামীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন।

বিচারে নিজামীর বিরুদ্ধে ১৬টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আনা হয়। এরমধ্যে ৮টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়। ৮টির মধ্যে ২, ৪, ৬ ও ১৬ নম্বর অভিযোগে তাকে ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়েছে।

২নং অভিযোগে বলা হয়েছে, একই বছরের ২২ আগস্ট নিজামী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক একাডেমি হলে আল-মাদানি স্মরণসভায় বক্তব্য রাখেন। তিনি এ সভায় দলীয় নেতাকর্মীদের স্বাধীনতাকামীদের নিশ্চিহ্ন করতে উদ্বুদ্ধ করেন। এরপর তারা সারাদেশে সংগঠিত হয়ে অপরাধ করতে থাকেন। যার দায় নিজামীর।

৪নং অভিযোগে বলা হয়েছে, একই বছরের ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর যশোর বিডি হলে ছাত্রসংঘের সভায় তিনি জিহাদের সমর্থনে বক্তব্য দেন। নিজামী ওই সভায় বক্তব্য দিয়ে নিরীহ স্বাধীনতাকামী বাঙালি হত্যার নির্দেশ দেন।

৬নং অভিযোগে বলা হয়েছে, নিজামীর নির্দেশে পাকিস্তান বাহিনীর সহযোগিতায় একই বছরের ৮ মে পাবনার সাঁথিয়া থানার করমজা গ্রামে লোক জড়ো করে নির্বিচারে সুরেন্দ্রনাথ ঠাকুরসহ অসংখ্য লোককে হত্যা করা হয়। নারীদের ধর্ষণ করা হয়।

১৬নং অভিযোগে বলা হয়েছে, আলবদর বাহিনীর প্রধান হিসেবে নিজামী একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ের ঊষালগ্নে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি জড়িত বলে অভিযোগ করা হয়।

উল্লেখ্য, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগে দায়ের করা একটি মামলায় জামায়াতে ইসলামীর আমীর মতিউর রহমান নিজামীকে ২০১০ সালের ২৯ জুন গ্রেফতার করা হয়। একই বছরের ২ আগস্ট তাকে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলাতেও গ্রেফতার দেখানো হয়।

২০১২ সালের ২৮ মে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল নিজামীর বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগ গঠন করে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার বিচার শুরু করে।

মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধে যুক্ত থাকার অভিযোগে ২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর নিজামীকে ফাঁসির দণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল।

ট্রাইবুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন নিজামী। চলতি বছরের ৬ জানুয়ারিতে আপিলেও ফাঁসির দণ্ড বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

চলতি বছরের ২৯ মার্চ নিজামী আপিল বিভাগের রায় পুনর্বিবেনার আবেদন করেন। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল এবং উচ্চ আদালতে দেওয়া ফাঁসির দণ্ড গত ৫ মে রিভিউয়েও বহাল থাকে।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *