তুরস্কের বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ৩৬
আন্তর্জাতিক

তুরস্কের বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ৩৬

তুরস্কের বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ৩৬তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরের প্রধান বিমানবন্দর আতাতুর্কে গুলিবর্ষণ ও বোমা হামলায় ৩৬ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১৪৭ জন। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার তিন বন্দুকধারী ও আত্মঘাতী এ হামলা চালায়।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে বিমানবন্দর টার্মিনালের প্রবেশমুখে একটি চেক পয়েন্টে পৌঁছায় ৩ বন্দুকধারী। পুলিশ আটকানোর চেষ্টা করলে বন্দুকধারীরা টার্মিনালে অপেক্ষমান যাত্রীদের উপর গুলি বর্ষণ শুরু করে। চেকপয়েন্টে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তাদের নিস্ক্রিয় করা চেষ্টা করলে মুহূর্তের ব্যবধানে বন্দুকধারীদের একজন নিজের শরীরে জড়ানো বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এসময় পুলিশ সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছোড়ে।

বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহতদের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, হতাহতরা অপেক্ষমান যাত্রী ও বিমানবন্দর কর্মী হওয়ার সম্ভবনা বেশি।

তুরস্কের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মৃতের সংখ্যা ৫০ পর্যন্ত বাড়তে পারে। এ ছাড়া বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, হামলায় নিহত ও আহতদের মধ্যে তুর্কিসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিক আছেন।

বিবিসির সাংবাদিকদের মতে, ইস্তাম্বুল আতাতুর্ক বিমানবন্দর শহরের সবচেয়ে বৃহত্তম এবং ইউরোপের তৃতীয় ব্যস্ততম বিমানবন্দর হলেও সেখানে নিরাপত্তাব্যবস্থায় ঘাটতি ছিল। বিমানবন্দরে এক্স-রের মাধ্যমে গাড়ি পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকলেও সব গাড়ি পরীক্ষা করে দেখা হতো না।

গোলাগুলির পর আতাতুর্ক বিমানবন্দর থেকে নির্ধারিত সব ফ্লাইট বাতিল করে যাত্রীদের হোটেলে ফেরত পাঠানো হয়। টার্কিশ এয়ারলাইন্সের এক কর্মকর্তা সংবাদ মাধ্যমকে এ কথা জানিয়েছেন।

এ বছর তুরস্কে বেশ কয়েক দফায় বোমা হামলা হয়েছে। এর মধ্যে ইস্তাম্বুলের পর্যটন এলাকায় দুই দফা আত্মঘাতী হামলা হয়। ওই হামলার জন্য জঙ্গি সংগঠন আইএসকে দায়ী করা হয়।

বিমানবন্দরে এ হামলার দায়িত্ব এখনো স্বীকার করেনি কোনো সংগঠন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও বন্দুকধারীদের পরিচয় সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেনি। বন্দুকধারীদের কেউ পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে কি না তাও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইয়ালদিরিম বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট এ হামলা চালিয়েছে। জানা গেছে, তুরস্কের সাম্প্রতিক বোমা হামলাগুলোর সঙ্গে আইএস বা কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদীরা জড়িত।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান বলেন, এ হামলা সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক যুদ্ধের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে। তিনি বলেন, এমন হামলা বিশ্বের যেকোনো দেশের বিমানবন্দরের ঘটতে পারত।

তুরস্কের বিমানবন্দরে হামলা ঘৃণ্য কাজ বলে জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তুরস্কের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে তারা।

তুরস্কে বিমানবন্দরে হামলায় নিহতদের জন্য শোক জানিয়েছেন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাঙ্ক-ওয়াল্টার স্টেইনমেয়ার। তিনি বলেন, এই দুঃসময়ে তুরস্কের পাশে থাকবে জার্মানি।

শিরোনাম ডট কম
শিরোনাম ডট কম । অনলাইন নিউজ পোর্টাল Shironaam Dot Com । An Online News Portal
http://www.shironaam.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *