তিন স্ত্রী নিয়ে ঘর করছেন যে গ্রামের পুরুষরা

তিন স্ত্রী নিয়ে ঘর করছেন যে গ্রামের পুরুষরা

তিন স্ত্রী নিয়ে ঘর করছেন যে গ্রামের পুরুষরাতিন স্ত্রী নিয়ে ঘর করছেন যে গ্রামের পুরুষরা সেটি মুম্বাই থেকে প্রায় ১৫০ কিমি দূরত্বে। গ্রামের নাম দেঙ্গানমল, মহারাষ্ট্রে। এই গ্রামের অধিকাংশ পুরুষই কমবেশি তিন জন স্ত্রীকে নিয়ে সংসার করেন। না, নিছক ভোগলালসা মেটানোর জন্য বহুবিবাহের পথ তারা বেছে নেন না। বরং একাধিক বিয়ে করার একমাত্র কারণ হচ্ছে পরিবারে পানি আনার লোকের সংখ্যা বাড়ানো।

দেঙ্গানমল (Denganmal) এমন একটি গ্রাম যেখানে প্রবল পানির কষ্ট। প্রত্যন্ত এই গ্রামে পানির একমাত্র উৎস কয়েকটি কুয়া। সেই সমস্ত কুয়া গ্রীষ্মে শুকিয়ে যায়। তখন দূরবর্তী কুয়া বা নদী থেকে পানি বয়ে আনা ছাড়া উপায় থাকে না।

গ্রামবাসীরা জানাচ্ছেন, গ্রীষ্মকালে পানি বয়ে আনার জন্যে যাতায়াত মিলিয়ে প্রায় ১২ ঘণ্টা হাঁটতে হয়। নারীরাই এই পানি আনার কাজ করে থাকেন। প্রতি বার ১৫ লিটারের দু’টি কলসি বয়ে আনেন নারীরা।এমতাবস্থায় এই গ্রামের পুরুষরা বুঝে গিয়েছেন, বহুবিবাহই পানি সমস্যা মেটানোর সহজতম রাস্তা। বাড়িতে বউয়ের সংখ্যা যত বাড়বে তত বাড়বে পানি আনার হাত ও কলসির সংখ্যা। কাজেই অনেকেই দু’টি কিংবা তিনটি স্ত্রী নিয়ে ঘর করছেন দেঙ্গানমলে।

ঘরের বউদের এই গুরুত্বের সুবাদে গ্রামে বিশেষ সম্মান পান বিবাহিত নারীরাও। বিয়ের জন্য কন্যাসন্তান সম্পন্না বিধবা কিংবা বিবাহবিচ্ছিন্নাদের কদর বেশি। কারণ ঘরে কন্যাসন্তান আসা মানে ঘরের কাজকর্ম সামলাতে পারবে সেই মেয়ে। বহুবিবাহ যে সমস্যার সমাধান নয়, তা মানছেন গ্রামবাসীরাও।

তাদের বক্তব্য, প্রশাসনের কাছে বহু আবেদন-নিবেদন করেছেন তাঁরা এই বিষয়ে। কিন্তু সরকার তাদের প্রতি উদাসীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *