তারেক রহমানের ৭ বছরের কারাদণ্ড

তারেক রহমানের ৭ বছরের কারাদণ্ড

তারেক রহমানের ৭ বছরের কারাদণ্ডঅর্থ পাচার মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে তাঁকে ২০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

একইসঙ্গে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। তার বন্ধু ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের ৭ বছরের সাজা বহাল রেখেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার সকালে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বেঞ্চ এ রায় দেন। এর আগে এ মামলায় নিম্ন আদালত ২০১৩ সালের ১৭ নভেম্বর তারেক রহমানকে খালাস দেন এবং একই মামলার রায়ে গিয়াসউদ্দিন আল মামুনকে সাত বছরের কারাদণ্ড এবং ৪০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়।

তারেক রহমান গ্রেফতার বা আত্মসমর্পণ হওয়ার পর থেকে এ মামলার রায় কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মামলার বাদী খাদিজা বেগম ও পোসাপ গ্রুপের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন, মেরিনা জামানসহ তিনজনের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে দুদককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেন, দেশের টেকসই ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে অর্থ পাচার বড় ধরনের বাধা। তারেক রহমান একজন সচেতন রাজনৈতিক ব্যক্তি। রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ কিংবা এক বা একাধিক ব্যক্তিকে সুবিধা দেওয়া অর্থনৈতিক অপরাধ, যার দায়িত্ব তারেক রহমান এড়াতে পারেন না।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, টঙ্গীতে প্রস্তাবিত ৮০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের কাজ নির্মাণ কনস্ট্রাকশনস নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে পাইয়ে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার টাকা ঘুষ নেন মামুন।

২০০৩ থেকে ২০০৭ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন পন্থায় ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৮৪৩ টাকা সিঙ্গাপুরের সিটি ব্যাংকে মামুনের হিসাবে পাচার করা হয়, যার মধ্যে ৩ কোটি ৭৮ লাখ টাকা তারেক খরচ করেন বলে অভিযোগপত্রে বলা হয়।

জজ আদালতের রায়ে বলা হয়, ওই টাকা খরচ করার কথা তারেক রহমান অস্বীকার করেননি। ২০০৭ সালে দুদকে দাখিল করা তারেকের হিসাব বিবরণীতে তার উল্লেখ রয়ছে। তিনি যে মানি লন্ডারিং আইনে অপরাধ করেছেন তা প্রমাণ হয়নি।

তারেকের রায়ের বিরুদ্ধে দুদক ওই বছর ৫ ডিসেম্বর আপিলের আবেদন করে। শুনানি শেষে ২০১৪ সালের ১৯ জানুয়ারি হাই কোর্ট দুদকের আপিল গ্রহণ করে আসামি তারেককে আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেয়। পরে তাকে পলাতক দেখিয়েই আপিল শুনানি চলে। মামলাটি দায়ের থেকে শুরু করে পুরো বিচার প্রক্রিয়াই অনুপস্থিত ছিলেন তারেক।

উল্লেখ্য, রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় ২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর দায়ের করা এ মামলায় তারেক-মামুনের বিচার শুরু হয় ২০১১ সালের ৬ জুলাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *